Now you have implemented jQuery library into your blog. Now lets see how to add scrolling recent posts widget to blogger. If you've already inserted jQuery code then don't put it again. Now Add A new HTML/JavaScript widget Then paste the code given below:
Showing posts with label খাদ্য ও পুষ্টি. Show all posts
Showing posts with label খাদ্য ও পুষ্টি. Show all posts

Wednesday, February 19, 2020

বাহিরের ভেজাল গুড়ো দুধ আর নয়, এবার বাড়িতেই তৈরি করুন গুঁড়ো দুধ


গুঁড়ো দুধের ব্যাবহার প্রতিটি পরিবারে কম বেশি প্রতিদিনই হয়। সেমাই, মিষ্টি, কিংবা দুধের তৈরি যে কোন খাবার তৈরিতে আমরা গৃহিণীরা এই গুঁড়ো দুধ ব্যাবহার করি। বাজার থেকে কেনা এই গুঁড়ো দুধ কতোটা স্বাস্থ্যসম্মত তা আমরা জানি না। তাই এই গুঁড়ো দুধ যদি আপনার ঘরেই তৈরি করা যায় তবে কেমন হয়।
হুম, ঠিকই শুনেছেন স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে গুঁড়ো দুধ আপনি এখন ঘরেই তৈরি করতে পারবেন। প্রয়োজনীয় উপকরণ ও প্রস্তুত প্রণালী নিতে দিয়ে দিলাম।
উপকরণ: তরল দুধ ১ লিটার, চিনি আধা কাপ।
প্রস্তুত প্রণালী: চুলায় প্যান বসিয়ে দুধ জ্বাল দিতে থাকুন। ফুটে উঠলে চুলার আঁচ একদম কমিয়ে দুধ জ্বাল করুন। উপরে সর পড়লে একটি চামচ দিতে মাঝে মাঝে তা চারদিক থেকে মাঝখানে এনে দিন। এভাবে সবটুকু দুধকে মালাই বানিয়ে বাটিতে ঢেলে রাখুন।
এবার ছড়ানো একটি প্লেটে মালাই ছড়িয়ে শুকিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে প্লেট থেকে আলগা করে হাত দিয়ে ভালোভাবে ভেঙে নিন। ব্লেন্ডারে শুকিয়ে নেয়া মালাই, চিনি দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। ব্যস, তৈরি হয়ে গেল স্বাস্থ্যসম্মত গুঁড়ো দুধ। এটি কাঁচের বয়ামে করে নরমাল ফ্রিজে রেখে এক মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে পারবেন।

Thursday, February 6, 2020

যৌনশক্তি বাড়ানোর প্রাকৃতিক উপায়

যৌনশক্তি বাড়াতে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পন্ন ঔষধি কৌশল এবং মনোবৈজ্ঞানিক চিকিৎসা এখন প্রায় সেকেলে হয়ে পড়েছে। আজকাল যৌনশক্তি বাড়াতে প্রাকৃতিক কামোদ্দীপক বা যৌনশক্তি বর্ধক খাদ্যই অনেক বেশি কার্যকরী হিসেবে বিবেচিত হয়। তাই বিবাহিত জীবনে যৌনতায় ফিট থাকতে হলে আপনাকে দৈনন্দিন খাবার দাবারের প্রতি পূর্ণ মনোযোগী হতে হবে। কারণ সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ভালো বোঝাপড়া থাকার পাশাপাশি দরকার স্বাস্থ্যকর যৌন জীবন। অথচ প্রায়ই দেখা যায় যৌন সমস্যার কারনে সংসারে অশান্তি হয়, এমনকি বিচ্ছেদ পর্যন্ত হয়। তাই আগে থেকে সতর্ক থাকলেও এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি নাও হতে পারেন আপনি। আপনার যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য কোন প্রকার ঔষধের প্রয়োজন নেই, তার জন্য দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবার দাবারই যথেষ্ট। আপনার খাবার মেনু তে নিয়মিত দুধ, ডিম এবং মধু রাখুন আর নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন করুন, তাহলে যৌন দুর্বলতায় ভুগবেন না।

সঙ্গমের আকাঙ্ক্ষা বাড়াতে এবং সঙ্গীর সঙ্গে ভালো সময় কাটাতে খেতে পারেন ‘অ্যাফ্রোডিসিয়াক ফুড’ নামে পরিচিত কিছু খাবার।
এই খাবারগুলো যৌনসুখের অনুভূতি জাগিয়ে তোলে এবং বিভিন্ন গ্রন্থিকে উত্তেজিত করে পুরুষ ও নারীদের যৌনসঙ্গমের ক্ষমতা বাড়ায়।

স্বাস্থ্যবিষয়ক এক ওয়েবসাইট এমন কয়েকটি খাবার সম্পর্কে জানায়।

চকলেট: রোমান্স আর আবেগের প্রতীক চকলেট। বলা হয়, চকলেট খাওয়ার পর নারীদের শরীরে যে পরিমাণ ‘এন্ডোফরমিন’ তৈরি হয় তা ঘনিষ্ঠ ‘ফোরপ্লে’য়ের তুলনায় চার গুণ। পাশাপাশি ‘ফোরপ্লে’তে চকলেটের রয়েছে কয়েকটি আকর্ষণীয় ব্যবহারও।

কমলা: একটি মিষ্টি ও আবেদনময়ী ফল এই কমলা। সঙ্গীকে কামোত্তেজক এক অভিজ্ঞতায় প্রতি আকৃষ্ট করতে চকলেটের পরিবর্তে ব্যবহার করা যেতে পারে এই ফল।

ডিম: শেষ কবে কোনো রকম তাড়াহুড়া ছাড়া দুশ্চিন্তামুক্তভাবে সঙ্গীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সময় কাটিয়েছিলেন মনে করতে পারেন? দৈনন্দিন রুটিনবাঁধা জীবন আর সংসারের বিভিন্ন ঝামেলার কারণে যৌনজীবন আকর্ষণীয় করা নিয়ে চিন্তা করার সময় হয়ে ওঠে না অনেকেরই। এখানেই ডিমে থাকা ‘ভিটামিন বি ফাইভ’ এবং ‘ভিটামিন বি-সিক্স’য়ের ভূমিকা। দুটোই মানসিক চাপ কমায়, বৃদ্ধি করে যৌন ক্ষমতাও। পাশাপাশি স্বাস্থ্যগত অন্যান্য উপকার তো আছেই।



তরমুজ: যৌনজীবনে ফুলঝুরি ফোটাতে চাইলে প্রতিদিন তরমুজ খাওয়া শুরু করতে পারেন। ‘প্রাকৃতিক ভায়াগ্রা’ হিসেবে বিবেচিত তরমুজ হল ‘সিট্রুলিন’ নামক একধরনের অ্যামিনো অ্যাসিডের উৎস, যা রক্তনালীর সংকোচন প্রসারণে সাহায্য করে। যৌনাঙ্গ দৃঢ় হওয়া বিষয়ক সমস্যার চিকিৎসায় তরমুজ বেছে নিতে পারেন।


জাফরান: তাৎক্ষনিক উপকার পেতে দৈনিক খাদ্যাভ্যাসে যোগ করা যেতে পারে পর্যাপ্ত পরিমাণ জাফরান। প্রাকৃতিক ‘অ্যাফ্রোডিসিয়াক’ খাবারের উপকারীতা বিষয়ক সাম্প্রতিক গবেষণা অনুযায়ী, এটা যৌন চাহিদা বাড়াতে সহায়ক। ‘ক্রোকাস স্যাটিভাস’ নামক ফুলের গর্ভমুণ্ড বা পরাগধানী শুকিয়ে জাফরান তৈরি করা হয়। ভারতীয়, ইতালিয়ান এবং স্প্যানিশ কুইজিনে জাফরান ব্যবহার করা হয়।


রসুন: সমস্যা মুখোমুখি না হওয়া পর্যন্ত আমরা আমাদের যৌনস্বাস্থ্য ও ক্ষমতার উপর গুরুত্ব দেই না। এই অভ্যাস ত্যাগ করা উচিত এবং প্রতিদিন রসুন খাওয়ার মাধ্যমে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। নারী-পুরুষ উভয়েরই যৌন প্রক্রিয়া, যৌনক্ষমতা এবং সঙ্গমের চাহিদা বৃদ্ধি করতে রসুনের উপকারিতা সুপরিচিত। এর প্রধান কারণ হল, রসুনে প্রচুর পরিমাণে থাকে ‘অ্যালিসিন’ নামক উপাদান, যা যৌনাঙ্গে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি করে।

২৭টি স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক টিপস যা থেকে অন্যরা উপকার পেয়েছেন বলে প্রমাণিত!

স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি বিষয়ে আসলে বিভ্রান্ত হওয়া সহজ। কেননা, স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক পরামর্শের ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন পুষ্টিবিদদের মাঝে মতপার্থক্য থাকার কারণে সঠিক দিকনির্দেশনা লাভ করা সত্যি বেশ কঠিন ব্যাপার। তবুও, সমস্ত মতপার্থক্য থাকা সত্ত্বেও, কিছু পরামর্শ গবেষণার মধ্য দিয়ে সুস্বাস্থ্যের জন্য অনুসরণীয় হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করতে সমর্থ হয়েছে।


এই পোস্টে সেই সব বিজ্ঞানসম্মত স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক প্রমাণিত পরামর্শ থেকে ২৭টি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ আপনাদের জন্য নিম্নে উপস্থাপন করা হল:-


১. চিনির ক্যালোরি পান করবেন না

চিনিযুক্ত পানীয় হল আপনার শরীরের মেদ বৃদ্ধির অন্যতম প্রভাবক অর্থাৎ এটি সবচেয়ে মেদযুক্ত আইটেমগুলির মধ্যে একটি।। কঠিন খাবার থেকে গ্রহীত ক্যালরিকে মস্তিষ্ক যেভাবে প্রক্রিয়াজাত করে থাকে, তরল চিনিযুক্ত পানীয়ের ক্ষেত্রে সেইভাবে কাজ করে না। যার জন্যে, আপনি যখন সোডা জাতীয় পানীয় পান করছেন, আপনি অপেক্ষাকৃত বেশি মাত্রায় ক্যালরি গ্রহণ করে ফেলছেন। চিনিযুক্ত পানীয় মেদবাহুল্য বা স্থুলতার সাথে বিশেষভাবে সম্পর্কযুক্ত। এটি টাইপ-২ ডায়বেটিসসহ বহু প্রকারের স্বাস্থ্য সমস্যার জন্য দায়ী।


মনে রাখবেন যে, এই তালিকায় কিছু বিশেষ ফলের জুসও রয়েছে। কারণ, সেগুলোতেও এমনই অধিকমাত্রায় চিনি ব্যবহৃত হয়েছে। এমন জুসে যে সামান্য পরিমাণে এন্টি-অক্সিডেন্টস থাকে, তা চিনির ক্ষতিকারক প্রভাবকে অকার্যকর করার জন্য যথেষ্ট নয়।


২. বাদাম খান

চর্বিযুক্ত হওয়া সত্ত্বেও বাদাম বেশ পুষ্টিগুণসম্মত এবং স্বাস্থ্যকর। বাদাম ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন-ই, ফাইবার এবং আরো বিভিন্ন প্রকার নিউট্রিয়েন্টসে ভরপুর। গবেষণায় দেখা গেছে, বাদাম ওজন কমাতে সহায়ক। এমনকি হৃদরোগ এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাসেও বাদাম সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে।

বাদামের শতকরা ১০-১৫ শতাংশ ক্যালরি শরীরে শোষিত হয় না। এর ফলে, বাদামের কারণে মেদ বৃদ্ধির দুশ্চিন্তাও আর থাকছে না। কিছু গবেষণালব্ধ ফলাফলে আরো ইঙ্গিত মেলে যে, এটি পরিপাকক্রিয়ার জন্যও বেশ উপকারি।

আরেকটি পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে, কাঠবাদাম অন্যান্য কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেডসমূহের (complex carbohydrates) তুলনায় শতকরা ৬২ শতাংশ দ্রুত ওজন হ্রাসে ভূমিকা রাখে।

৩. প্রক্রিয়াজাত জাঙ্ক ফুড এড়িয়ে চলুন (পরিবর্তে আসল খাবার/ রান্না করা খাবার খান)

প্রক্রিয়াজাতকৃত জাঙ্কফুড স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এরকম খাদ্যগুলো তৈরিই করা হয়েছে কেবলমাত্র মস্তিষ্কের পরিতৃপ্তির কেন্দ্রবিন্দুকে উত্তেজিত করার কথা মাথায় রেখে। যার জন্য, জাঙ্কফুড বহু মানুষকেই অতিভোজনের নেশায় প্ররোচিত করে। এমনিতে, বেশিরভাগ জাঙ্কফুডে ফাইবার (fiber), প্রোটিন (protein) আর মাইক্রো-নিউট্রিয়েন্টেসের (micro-nutrients) মাত্রা কম থাকে। এমন খাবারগুলোয় মাত্রাতিরিক্ত চিনি, পরিশোধিত শস্য থাকে যা শুধুই ক্যালরি বৃদ্ধি ছাড়া আর কোনো উপকারে আসে না।

৪. কফি ভয় করবেন না তথা কফিকে না বলবেন না!

কফি নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যকর।

এটিতে উচ্চমাত্রায় এন্টিঅক্সিডেন্টস (antioxidants) থাকে। কিছু গবেষণায় প্রমাণ মিলেছে যে, কফি দীর্ঘায়ু লাভে সহায়ক এবং কফি টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। পার্কিনসন্স ডিজিজ ও এ্যালযাইমার্স’ ডিজিজ (Parkinson’s and Alzheimer’s diseases) এবং আরো বহু রোগের হাত থেকে রক্ষায় কফির ভূমিকা উল্লেখ্যযোগ্য।

৫. চর্বিযুক্ত মাছ খান

মানসম্মত প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বির যোগানে মাছ একটি স্বীকৃত উৎস। স্যামন মাছের (দেশী রুই) মত চর্বিযুক্ত মাছগুলোর ক্ষেত্রে কথাটি পুরোপুরি সত্য। এ ধরণের মাছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড (omega-3 fatty acid) ও আরো বিভিন্ন পুষ্টিগুণ রয়েছে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, যারা বেশি বেশি মাছ খানে তাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি ততই কম মাত্রায় থাকে। হৃদরোগ, স্মৃতিভ্রম এবং দুশ্চিন্তা থেকে তারাও অপেক্ষাকৃত কম আক্রান্ত হন।


৬. পর্যাপ্ত ঘুম প্রয়োজন

পর্যাপ্ত ঘুমের গুরুত্ব না বললেই নয়। অপর্যাপ্ত ঘুমের ফলে শরীর ইনসুলিন প্রতিরোধী হয়ে পড়ে। এছাড়াও, কম ঘুম পরিপাকে সহায়ক হরমোনের তারতম্য এবং দৈহিক ও মানসিক কার্যকারিতাও হ্রাস পায়। সন্তোষজনক ঘুম না হলে সবচেয়ে বড় যে ক্ষতির সম্মুখীন হবার সম্ভাবনা থাকে, তা হলো: মেদ বৃদ্ধি। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে অপর্যাপ্ত ঘুম শিশু ও প্রাপ্তবয়স্কদের মাঝে মেদবাহুল্যের বৃদ্ধি ঘটিয়েছে যথাক্রমে ৮৯% ও ৫৫% হারে।

৭. পাকস্থলির যত্ন নিন প্রোবায়োটিক্স ও ফাইবার (probiotics and fiber) দিয়ে

পাকস্থলিতে থাকা ব্যাকটেরিয়াকে সামষ্টিকভাবে গাট মাইক্রোবায়োটা (gut microbiota) বলে। যা সামগ্রিক সুস্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই গাট ব্যাকটেরিয়ার তারতম্য ঘটলে মেদবাহুল্যসহ জটিল সব রোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি থাকে। পাকস্থলির যত্নে এইজন্য চাই দই (yogurt) ও সাওয়ারক্রাটের (sauerkraut) মত প্রোবায়োটিক খাদ্যের। এছাড়াও চাই প্রচুর পরিমাণে ফাইবারসমৃদ্ধ খাদ্যে। ফাইবার পাকস্থলির ব্যাকটেরিয়াকে কর্মক্ষম করতে প্রয়োজনীয় জ্বালানীর যোগান দেয়।

৮. খাবার পূর্বে অল্প পরিমাণে পানি পানের অভ্যাস করুন

পর্যাপ্ত পানি পানের অসংখ্য উপকারিতা রয়েছে। বিস্ময়করভাবে, এটি ক্যালরি বার্নিংর মাত্রাও বৃদ্ধি করে। দুই ভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, এই অভ্যাসে এক থেকে দেড় ঘন্টায় মেটাবলিযমের শতকরা হার বৃদ্ধি পেয়েছে ২৪ থেকে ৩০ শতাংশ। আপনি যদি ৮.৪ কাপ বা দুই লিটার পরিমাণ পানি পান করেন তবে, এটি প্রায় ৯৬ ক্যালরি হ্রাসে ভূমিকা রাখবে।

খাবার আগের সময়ই পানি পানের মোক্ষম সময়। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে, ২.১ কাপ বা ৫০০মি.লি. পানি প্রতিবার খাবার গ্রহণের ৩০মিনিট পূর্বে পান করার ফলে শতকরা ৪৪ শতাংশ ওজন হ্রাস পেয়েছে।

৯. মাংস বেশি রান্না বা পুড়িয়ে ফেলা থেকে বিরত থাকুন

মাংস খাদ্যতালিকায় পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যকর একটি অংশ হতে পারে। এতে উচ্চমাত্রায় প্রোটিন ও পুষ্টিগুণ (nutrients) রয়েছে। তবে, সমস্যা হয় যখন মাংস বেশি রান্না হয়ে যায় বা পুড়ে যায়। এর ফলে মাংসের মধ্য ক্ষতিকারক উপাদান তৈরি হয় যা, ক্যান্সারের কারণ হতে পারে। তাই, মাংস রান্নার ক্ষেত্রে সতর্কদৃষ্টি রাখা প্রয়োজন।

১০. ঘুমের পূর্বে তীব্র আলো পরিহার করুন

সন্ধ্যা থেকে তীব্র আলোয় থাকলে ঘুমে সহায়ক হরমোন মেলাটোনিন (melatonin) উৎপন্ন হবার প্রক্রিয়ায় জটিলতা সৃষ্টি হয়। এ জন্য, একটি কৌশল অবলম্বন করা যেতে পারে; আলোর উৎসের সামনে লাল রঙের কাঁচের শেড ব্যবহার করে চোখে নীল আলো প্রবেশ প্রতিহত করা। এতে করে স্বাভাবিক প্রক্রিয়া মেলাটোনিন হরমোন উৎপাদন হতে থাকবে। ফলে আপনিও অপেক্ষাকৃতভাবে ভালো ঘুম পাবেন।

১১. পর্যাপ্ত সূর্যের আলো না পেলে ভিটামিন ডি-৩ গ্রহণ করুন

সূর্যালোক ভিটামিন-ডি (vitamin-D) এর দারুণ একটি উৎস। যদিও, যুক্তরাষ্ট্রের ৪১.৬% মানুষ এই প্রয়োজনীয় ভিটামিনের অভাবে ভোগে। তাই, পর্যাপ্ত সূর্যালোক না পেলে, সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ভিটামিন ডি একটি ভালো বিকল্প। হাড় ভালো রাখতে, শক্তিবর্ধক হিসেবে, দুশ্চিন্তা লক্ষণসমূহ হ্রাসে, ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে এবং দীর্ঘায়ুর সহায়ক হিসেবে ভিটামিন ডি’র ভূমিকা উল্লেখ্য।


১২. ফলমূল ও শাকসব্জি খান

ফলমূল ও শাকসব্জি প্রিবায়োটিক ফাইবার (prebiotic fibre), ভিটামিন (vitamins), খনিজ পদার্থ (minerals) এবং প্রচুর এন্টিঅক্সিডেন্টে (antioxidants) ভরপুর। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যারা বেশি বেশি ফলমূল ও শাকসব্জি খেয়ে থাকেন তাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি, টাইপ-২ ডায়াবেটিস, মেদবাহুল্য এবং অন্যান্য রোগের আশংঙ্কা তুলনামূলকভাবে কম থাকে।

১৩. পর্যাপ্ত প্রোটিন গ্রহণ নিশ্চিত করুন

সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণের জন্য চাই পর্যাপ্ত প্রোটিনসমৃদ্ধ খাদ্য গ্রহণ। এই পুষ্টি উপাদানটি আরো প্রয়োজন পড়ে ওজন হ্রাসের জন্য। হাই প্রোটিন যেমন পরিপাকতন্ত্রকে ব্যস্ত রাখে তেমনি কম ক্যালরি গ্রহণ করেও ভরপেট থাকার সুযোগ করে দেয়। এর জন্য মাঝরাতে হাল্কা নাস্তা করার জন্যও ইচ্ছেতে ভাটা পড়ে।

পর্যাপ্ত প্রোটিন গ্রহণের ফলে ব্লাডসুগার এবং ব্লাডপ্রেসারের মাত্রাও হ্রাস পায়।

১৪. কার্ডিও এক্সার্সাইজ (cardio excercise)

শারীরিক ও মানসিক সুস্বাস্থ্যের জন্য এ্যারোবিক এক্সার্সাইজ বা কার্ডিও একটি কার্যকরী অভ্যাস। বিশেষত পেটের মেদ কমাতে এটি বেশ উপকারি। পাকস্থলীর চারপাশে যে মেদ জমে ওঠে, তা ঝরাতে পারলে পরিপাকক্রিয়াতেও উন্নতি হয়।

১৫. ধুমপান ও মাদক সেবন করবেন না

ধুমপান ও মাদক সেবনের বদভ্যাস প্রথমে সামাল দিন। এরপর খাদ্যাভ্যাস আর শরীর চর্চা কথা ভাবুন। এ্যালকোহল গ্রহনের মাত্রাতিরিক্ত অভ্যাস থাকলে পুরোপুরি বর্জন করুন।

১৬. এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল (extra virgin olive oil)

ভেজিটেবল অয়েলের মধ্যে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল সবচেয়ে বেশি স্বাস্থ্যকর। হৃদপেশি সুস্থ রাখতে এই তেলের মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট ও শক্তিশালী এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রদাহজনিত ব্যাথার থেকে আপনাকে মুক্ত রাখতে সহায়তা করবে। যারা এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল খেয়ে থাকেন তাদের হৃদরোগ ও স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি তুলনামূলকভাবে কম।

১৭. চিনির পরিমাণ হ্রাস করুন (sugar intake)

বাড়তি চিনি আধুনিক খাদ্যাভ্যাসে সবচেয়ে বাজে উপকরণের মধ্য অন্যতম। উচ্চমাত্রায় চিনি খাবার সাথে মেদবাহুল্য, টাইপ-২ ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং বিভিন্ন প্রকারের ক্যান্সারের যোগসূত্র রয়েছে।

১৮. রিফাইন্ড কার্বোহাইড্রেড বেশি খাবেন না

সব কার্বোহাইড্রেড একভাবে তৈরি নয়। রিফাইন্ড কার্বোহাইড্রেড (refined carbohydrates) প্রক্রিয়াজাত করার সময় এর ফাইবার ছাঁটাই করা করা হয়। এতে, তুলনামূলকভাবে কম পুষ্টিগুণ থাকে। যা বেশি পরিমাণে খেলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, রিফাইন্ড কার্বোহাইড্রেড অতিভোজনকে উৎসাহিত করে। আর এটি পরিপাকক্রিয়ার বিভিন্ন ব্যাধির জন্যও দায়ী।

১৯. স্যাচুরেটেড ফ্যাটকে (saturated fat) ভয় পাবেন না

স্যাচুরেটেড ফ্যাট বিষয়টি বেশ বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। আদতেই, এটি কোলেস্টরেলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। এটি এইচডিএল বা ভালো কোলেস্টরেলের মাত্রা বাড়ায় আর এলডিএল বা খারাপ কোলেস্টরেলের মাত্রা হ্রাস করে। যার ফলে হৃদরোগের ঝুঁকিও কমে। লক্ষাধিক মানুষ নতুন কিছু পর্যবেক্ষণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট গ্রহণের সাথে হৃদরোগের সম্পর্কের ব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছেন।

২০. ভারী জিনিসপত্র তুলুন

ভারী জিনিসপত্র তোলার অভ্যাস পেশি শক্তি বৃ্দ্ধি এবং শারীরিক গঠণ উন্নত করতে বেশ উপকারি। এরফলে ইনসুলিন সেন্সিটিভি বাড়ে আর পরিপাকক্রিয়াও ভালো থাকে। এমনিতে ভার তোলার ব্যায়াম করা যেতে পারে। তবে, শরীর ওজন কাজে লাগিয়ে যে ব্যায়ামগুলো রয়েছে সেগুলোও সমানভাবে কার্যকরি।


২১. কৃত্রিম ট্র্যান্স ফ্যাট এড়িয়ে চলুন (artificial trans fats)

এই মানবসৃষ্ট ফ্যাট ভীষণ ক্ষতিকারক। যা, হৃদরোগ ও প্রদাহজনিত জটিলতার সৃষ্টি করে। যদিও, এটি যুক্তরাষ্ট্রসহ প্রায় দেশেই এটি নিষিদ্ধ ঘোষিত। তবুও, নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি কার্যকর করা যায়নি। এখনও কিছু খাদ্য এই কৃত্রিম চর্বির ব্যবহার হচ্ছে।

২২. গুল্ম ও মশলা (herbs and spices)

বিভিন্ন প্রকারের স্বাস্থ্যকর গুল্ম ও মশলার অস্তিত্ব রয়েছে। আদা আর হলুদ উভয়েই এন্টিইনফ্লেমেটরি আর এন্টিঅক্সিডেন্টের কাজ করে। যা, স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি। তাই, খাদ্যতালিকা ভেষজগুনসম্পন্ন এমন মশলাকে সংযুক্ত করুন আর সুস্থ থাকার চেষ্টায় আরো এক ধাপ এগিয়ে যান।

২৩. সম্পর্কের প্রতি যত্নশীল হন (relationships)

সামাজিক সম্পর্ক বজায় রাখা কেবল মাত্র মানসিক সুস্বাস্থ্যের জন্য্‌ই জরুরি; তা নয়। এটি শারীরিক সুস্থতার জন্যও সমানভাবে ভূমিকা রাখে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যারা পরিবার ও বন্ধুদের সাথে ঘনিষ্ঠ, তারা তুলনামূলকভাবে সুস্থ থাকে আর বেশি দিন বেঁচেও থাকে।

২৪. প্রায়শই নিজের খাদ্য তালিকার প্রতি দৃষ্টি রাখুন

কী পরিমাণ ক্যালরি গ্রহণ করছেন তা জানার একমাত্র উপায় খাবারের পরিমাণ যাচাই করা এবং একটি নিউট্রিশন ট্র্যাকার ব্যবহার করা। এছাড়াও, আপনি যথেষ্ট পরিমাণ প্রোটিন, ফাইবার ও মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস পাচ্ছেন কিনা তা নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যারা খাদ্যতালিকার হিসেব রাখেন তারা ওজন কমাতে এবং নিয়মমাফিক খাদ্যাভ্যাস বজায় রাখতে অধিক সফল।

২৫. পেটে বাড়তি মেদ জমতে দেবেন না (excess belly fat)

পেটে বাড়তি মেদ বিশেষভাবে ক্ষতিকর। এই মেদ বিভিন্ন পেটে অন্ত্রকে ঘিরে জমতে থাকে আর পরিপাকক্রিয়ার বিভিন্ন রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এজন্য, আপনার কোমড়ের মাপ আপনার ওজনের চেয়ে সুস্বাস্থ্যের নির্দেশক হিসেবে অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

কার্বোহাইড্রেড গ্রহণের মাত্রা হ্রাস করে বেশি বেশি প্রোটিন আর ফাইবার গ্রহণ পেটের মেদ কমাতে দারুন সহায়ক।

২৬. ডায়েট (diet) করতে যাবেন না!

ডায়েট আদতে অকার্যকরি আর দীর্ঘমেয়াদে খুব একটা আশানুরূপ ফলদায়ী নয়। (!) বরঞ্চ, কঠোর ডায়েটে থাকলে ভবিষ্যৎে সেটিই আবার ওজন বাড়ানোর কারন হয়ে পড়ে। তাই, ডায়েট না করে স্বাস্থ্যকর লাইফস্টাইলকে অগ্রাধিকার দিন।

আপনার শরীরকে পুষ্টি থেকে বঞ্চিত না করে এতে প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করুন। কাঙ্ক্ষিত ওজন হ্রাস পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাসে অভ্যস্ত হয়েও অর্জন করা যায়।

২৭. ডিম খান (eggs)

ডিমের সম্পূর্ণ অংশই পুষ্টিসমৃদ্ধ। যার জন্য একে প্রকৃতির মাল্টিভিটামিনও বলা হয়ে থাকে। কিছু রটনা আছে যে ডিম স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর কারণ এতে কোলেস্টরেলসমৃদ্ধ উপাদান রয়েছে। তবে, গবেষণায় জানা গিয়েছে যে, তা ব্লাড কোলেস্টরেলের ওপর কোনো প্রভাব ফেলে না।

এছাড়াও, একটি পরিসংখ্যানে ২,৬৩,৯৩৮ জন মানুষ তাদের প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন যে ডিম খাওয়ার সাথে হৃদরোগের কোনো যোগসূত্র তারা খুঁজে পাননি। বরং, ডিম বিশ্বের অন্যতম পুষ্টিকর খাবার। বিশেষত, ডিমের কুসুমে প্রয়োজনীয় সকল স্বাস্থ্যকর উপাদানের উপস্থিতি রয়েছে।

শেষোক্ত, কিছু সহজ পদক্ষেপ আপনার খাদ্যাভ্যাস আর সুস্বাস্থ্যের জন্য হতে পারে আশীর্বাদসরূপ। আপনি যদি আরো স্বাস্থ্যকর জীবনের আশা করেন তবে, আপনি কী খাচ্ছেন, তার ওপর সজাগ দৃষ্টি রাখলেই চলবে না! চাই পরিমিত ঘুম, শরীরচর্চা আর সুসম্পর্ক বজায় রাখা।

Wednesday, February 5, 2020

হিমোগ্লোবিন কি? হিমোগ্লোবিনের কাজ কি? হিমোগ্লোবিনের অভাবে কী হয়?

হিমোগ্লোবিন শব্দটির সঙ্গে আমরা প্রায় সবাই কম বেশি পরিচিত। এমনকি, এ শব্দটি মাথায় আসলেই আমাদের রক্তের কথা মনে পড়ে। কারণ, আমরা জানি এ শব্দটি রক্তের সঙ্গে সম্পর্কিত। মানুষসহ মেরুদন্ডী ও অমেরুদন্ডী সকল প্রাণীর রক্তেই হিমোগ্লোবিন থাকে যা অক্সিজেন পরিচালনাসহ শরীরের আরও অন্যান্য কার্যাবলী সম্পন্ন করে থাকে।

আসুন আজ হিমোগ্লোবিন সম্পর্কে বিস্তারিত জানি। এটি কি, কিভাবে আমাদের দেহে কাজ করে, এর রেঞ্জ কত, ইত্যাদি সব বিষয়েই সম্যক ধারণা নিয়ে রাখি।

হিমোগ্লোবিন কি?
হিমোগ্লোবিন আমাদের শরীরের একটি প্রয়োজনীয় প্রোটিন, মেডিকেল সায়েন্সের ভাষায় একে মেটালোপ্রোটিনও বলা হয়ে থাকে। এটি আমাদের রক্তের লোহিত কণিকায় থাকে এবং রক্তের মাঝে প্রয়োজনীয় ঘনত্ব বজায় রাখে। হিমোগ্লোবিনের জন্যে রক্ত যেমন ঘন হয়, তেমনি লালও হয়। রক্তের অন্যান্য উপাদান সচরাচর বর্ণহীন হয়ে থাকে, হিমোগ্লোবিনই রক্তকে লাল করে থাকে।

হিমোগ্লোবিন আমাদের দেহে দুই ধরণের প্রোটিন গঠনে ভূমিকা রাখে বলে জানিয়েছে মেডিকেল সায়েন্স। এর একটি হচ্ছে টারশিয়ারী আর অন্যটি হচ্ছে কোয়াটার্নারী। উভয় ধরণের প্রোটিনই শরীরের জন্যে দরকারি। আর এসব প্রোটিনের স্থায়িত্ব প্রদান করার জন্যে হিমোগ্লোবিন রক্তের মাঝে আলফা হেলিক্স নামের এক ধরণের অ্যামিনো অ্যাসিড উৎপন্ন করে থাকে।

হিমোগ্লোবিনের কাজ কি?
আমরা আগেই জেনেছি হিমোগ্লোবিন বর্ণহীন রক্তকে লাল করে থাকে। সেই সাথে রক্তে থাকা নানা রকম উপাদানের পর্যাপ্ততাও নিশ্চিত করে থাকে। তবে হিমোগ্লোবিনের মূল কাজ শরীরে অক্সিজেন পরিবহণ করা। এটি মানুষের শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন পৌঁছে দেয়। রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে গেলে যেসব সমস্যা হয় তার মাঝে প্রধাণতম বিষয়টি হচ্ছে অক্সিজেন স্বল্পতা।

আমরা যখন বাতাস থেকে নিশ্বাসের সঙ্গে অক্সিজেন গ্রহণ করি, তখন এটি প্রথমে আমাদের ফুসফুসে যায়। আর ফুসফুস থেকে এই অক্সিজেন শরীরের প্রতিটি টিস্যুতে, প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পরিবহণের দায়িত্বটি পালন করে হিমোগ্লোবিন।

আরও পড়ুনঃ   "বোবা ধরা" সম্পর্কে ইসলাম কি বলে এবং এর প্রতিকার
শুধু তাই নয়, এই হিমোগ্লোবিনই অক্সিজেনের সাথে কার্বণ ডাই অক্সাইড বিনিময় করে। অর্থাৎ, ফুসফুস থেকে অক্সিজেন নিয়ে শরীরে পাঠায় আর শরীর থেকে বিষাক্ত কার্বণ ডাই অক্সাইড নিয়ে ফুসফুসে পাঠিয়ে দেয়। অতপর ফুসফুস সেটাকে আমাদের নিশ্বাস ফেলার মাধ্যমে বাইরে পাঠিয়ে দেয়।

সুতরাং, আমরা বুঝতে পারছি যে আমাদের রক্তের অক্সিজেন সরবরাহের সঙ্গে হিমোগ্লোবিনের সম্পর্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণেই, রক্তে যদি কখনো এই লোহিত অনু ধারণকারী পদার্থটি কমে যায়, তবে শরীরে অক্সিজেন সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হয়। আর তখন আমরা অ্যানিমিয়াসহ নানা রকম শারীরিক সমস্যার সন্মুখীন হই।

রক্তে কোনও দূষিত পদার্থ দেখা দিলে হিমোগ্লোবিন সেটাকে পরিস্কার করে অর্থাৎ রক্তে যে কোন ধরণের ক্ষতিকর পদার্থ মিশ্রণে বাধা প্রদান করে। এমনকি, আমাদের শরীরে যত ধরণের বিষাক্ত গ্যাস জমা হয়, হিমোগ্লোবিন সেগুলোকে শরীরের বাইরে পরিবহণেও সহযোগীতা করে থাকে।

মানুষের দেহের রক্ত কণিকার ৯৬ থেকে ৯৭ ভাগই হয়ে থাকে হিমোগ্লোবিনের প্রোটিন অংশ। আর রক্তের মোট ওজনের (পানিসহ) ৩৫ ভাগই দখল করে থাকে এই হিমোগ্লোবিন। আমাদের শরীরে থাকা প্রতি ১ গ্রাম হিমোগ্লোবিন বাতাস থেকে প্রতিবার ১.৩৬ মিলিলিটার, কখনো কখনো তার চেয়ে কিছুটা বেশি অক্সিজেন গ্রহণ করতে পারে। যারফলে, শরীরে অক্সিজেন সরবরাহ, বিশেষ করে রক্তে এর পরিবহণের মাত্রা প্রায় ৭০ গুণ বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।

আমাদের শরীরের ৯৭ ভাগ অক্সিজেন ফুসফুস থেকে হিমোগ্লোবিনের মাধ্যমে শরীরের নানা অংশে সরবরাহ হয়ে থাকে। যে ৩ ভাগ বাকী থাকে, তা রক্তের প্লাজমায় মিশে যায়। হিমোগ্লোবিন রক্তের মধ্যে কমপক্ষে ৩০ থেকে উর্ধ্বে ১০০ বার পর্যন্ত অক্সিজেন মুভ করাতে পারে।

ফুসফুসের যেখানে অক্সিজেনের লেবেল অত্যন্ত বেশি থাকে, হিমোগ্লোবিন খুব সুন্দরভাবে সেখানে অক্সিজেনের মাত্রা ঠিক করে দেয়। অর্থাৎ, যে স্থানে অক্সিজেন বেশি সেখান থেকে বাড়তি অক্সিজেন নিয়ে যেখানে কম সেখানে পৌঁছে দেয়। হিমোগ্লোবিনের প্রতিটি অনুর ৪টি আয়রণ পরমাণু থাকে। আর প্রতিটি আয়রণ পরমাণু একটি করে অক্সিজেন গ্রহণ করে।

আরও পড়ুনঃ   পাতলা দেহের অধিকারী মানেই সুস্থতা নয়
শেষ কথা

হিমোগ্লোবি কি আর এর কাজ সম্পর্কে আমাদের মোটামুটি একটা ভাল ধারণা হয়েছে। এখন আমাদের যে ব্যাপারে অত্যন্ত সচেতন থাকতে হবে, তা হচ্ছে রক্তে যেন হিমোগ্লোবিন কমে না যায়। আর যদিও কোন কারণে কমে যায়, তবে আমাদেরকে নিয়মিত ওইসব খাবার খেতে হবে, যেসব খাবার রক্তে হিমোগ্লোবিন বাড়ায়। রক্তে যাতে যথেষ্ট্য পরিমাণে হিমোগ্লোবিন উৎপন্ন হয়, সে ব্যাপারে সচেষ্ট্য থাকার প্রধাণ উপায়ই হচ্ছে এইসব খাবার খাওয়া।

হিমোগ্লোবিনের অভাবে কী হয়?

আমরা উপরের আলোচনা থেকে যা বুঝলাম, হিমোগ্লোবিন হলো এক ধরনের প্রোটিন। এটি মানুষের শরীরে লোহিত রক্তকণিকার মধ্যে থাকে। এটা আমাদের শরীরে অক্সিজেন পরিবহনে সাহায্য করে। মানুষের শরীরের ভেতর প্রতিটি জায়গায় অক্সিজেন পৌঁছে দেয়ার কাজ হলো হিমোগ্লোবিনের। রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে গেলে অক্সিজেন সরবরাহও কমে যায়।

রক্তশূন্যতা
আমাদের শরীরে রক্তের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান লোহিত রক্তকণিকা, আর লোহিত রক্তকণিকার প্রাণ হচ্ছে হিমোগ্লোবিন। এই হিমোগ্লোবিনের কাজ হলো ফুসফুস থেকে দেহকোষে অক্সিজেন পরিবহন করা। আবার আমাদের বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন অক্সিজেন। কোনো কারণে রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বা পরিমাণ কমে গেলে সেই অবস্থাকে অ্যানিমিয়া বা রক্তশূন্যতা বলা হয়।

হিমোগ্লোবিনের স্বাভাবিক মাত্রা
বয়স ও লিঙ্গ অনুসারে হিমোগ্লোবিনের স্বাভাবিক মাত্রা ভিন্ন। সাধারণত জন্মের সময় নবজাতকের দেহে এক লিটার রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ থাকে ২০০ গ্রাম। পরবর্তীকালে তিন মাস বয়স থেকে তা কমতে থাকে এবং প্রায় অর্ধেক হয়ে যায়। পরে প্রাপ্ত বয়সের সময় হিমোগ্লোবিন আবার বাড়তে শুরু করে। পুরুষদের ক্ষেত্রে প্রতি লিটার রক্তে হিমোগ্লোবিনের স্বাভাবিক মাত্রা ১৩০ থেক ১৮০ গ্রাম। নারীদের ক্ষেত্রে ১১৫ থেকে ১৬৫ গ্রাম। এ ক্ষেত্রে পুরুষ কিংবা নারীর প্রতি লিটার রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমান ৭০ কিংবা ৮০ গ্রাম হলে তাকে রক্তশূন্যতা বলা চলে।

লক্ষণ
বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রেই অ্যানিমিয়ার নির্দিষ্ট লক্ষণ শনাক্ত করা সম্ভব হয় না। তবে এ ক্ষেত্রে বেশকিছু লক্ষণ প্রায় একই সঙ্গে থাকলে রক্ত পরীক্ষা করা খুবই জরুরি। যেমন-

শরীর ফ্যাকাসে থাকবে ও প্রচুর ঘাম হবে।
বুক ধড়পড় করবে।
নাড়ির স্পন্দন দ্রুত হবে।
মাথা ঘোরার সঙ্গে মাথা ব্যথাও থাকতে পারে।
চোখে ঝাপসা কিংবা কম দেখবে।
মুখের কোণে ও জিহ্বায় ঘা হতে পারে।
দুর্বলতা ও ক্লান্তিভাব। হজমে সমস্যা এবং পুরো শরীর ফুলে যায়।
পা ফুলে যাওয়া সঙ্গে শ্বাসকষ্টও থাকতে পারে।
অনিদ্রা কিংবা ঘুম কম হতে পারে। হৃৎপিন্ড বড় হয়ে যায় এবং দ্রুত হার্টবিট হতে থাকে।
আরও পড়ুনঃ   ক্যান্সার, মাইগ্রেনসহ নানা রোগ প্রতিরোধক সূর্যমুখী তেল
চিকিৎসা
রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে প্রচুর আয়রন, ভিটামিন ও ফলেটযুক্ত খাদ্য ও ওষুধ সেবন করতে হবে। তবে সমস্যা বেশি হলে যথাযথ ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

Wednesday, August 14, 2019

কেন হয় বিষণ্ণতা? রইল এর থেকে মুক্তির কিছু সহজ উপায়


বর্তমান যুগে "ডিপ্রেশন" নামক শব্দটার সাথে ছোটো থেকে বড় সবাই কম বেশি পরিচিত। আমাদের চলতি কথাবার্তার মধ্যে মাঝেমাঝেই এই শব্দটা আমরা ব্যবহার করে থাকি। বাংলায় আমরা একে "বিষণ্ণতা" বলে থাকি। সারা বিশ্বেই ডিপ্রেশন এক মারাত্মক ব্যাধি বলে স্বীকৃত। এই বিষণ্ণতা মানুষকে আস্তে আস্তে অক্ষমতার দিকে ঠেলে নিয়ে যায়। ছোটো, বড় প্রত্যেকেই কম বেশি স্ট্রেস, বিষণ্ণতায় ভোগে কোনও না কোনও সময়। ডিপ্রেশন এমন একটি মেন্টাল ডিসঅর্ডার, যার কারণে কোনও মানুষের জীবন ক্ষতবিক্ষত হয়ে যেতে পারে।


বর্তমান সময়ে #ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা বেশিরভাগই দেখা যায় ছাত্র-ছাত্রী বা টিনএজারদের মধ্যে। বিশেষ করে, বয়ঃসন্ধিকালে যে শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন আসে সেই সময় স্ট্রেস দেখা দেয়। ছেলেমেয়েদের ওপর এইসময় সবথেকে বেশি বিষণ্ণতা ভর করে এবং তারা আবেগবশত কিছু ভুল করে ফেলে। কেউ কেউ আত্মহত্যার পথও বেছে নেয়। আবার, কেউ কেউ ধূমপান, মদ্যপান ও নানারকম খারাপ কাজের সাথে জড়িয়ে পড়ে। যা মারাত্মক আকার ধারণ করে এবং অনেক সময় ছেলে-মেয়েদের ভবিষ্যৎ নষ্ট করে দেয়। মাঝেমাঝেই খবরের শিরোনামে উঠে আসে এই ধরনের খবর।


ডিপ্রেশন কী?

বিষণ্ণতা বা ডিপ্রেশন, স্ট্রেস এমনই মারাত্মক ব্যাধি যা মানুষের অনুভূতি, চিন্তা ও কাজ-কর্মের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। অনেকসময়, আমরা আমাদের মনখারাপ বা দুঃখবোধ ও বিষণ্ণতাকে এক বলে মনে করি। কিন্তু, এই দুটো এক নয়। দুঃখবোধ হল সাময়িক মনখারাপ যা কিছু সময়ের মধ্যেই ঠিক হয়ে যায়। আর এর জন্য কোনও চিকিৎসার দরকার হয় না। কিন্তু, ডিপ্রেশন হল দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা। যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

টিনএজার ছেলে--মেয়েদের বিষণ্ণতার কারণ :

ক) অনেকসময় পড়াশুনায় ব্যর্থ হলে বা কোনও কাজে সফল না হতে পারলে এই বয়সের ছেলে মেয়েরা বিষণ্ণতায় ভোগে।

খ) বন্ধুদের সঙ্গে মনোমালিন্যের কারণেও বিষণ্ণতা দেখা দেয়।

গ) কলেজ মানেই সদ্য স্কুলের গণ্ডি পেরিয়ে এক নতুন রঙিন জগৎ। নতুন বন্ধু-বান্ধব, পাশাপাশি প্রেমের আনাগোনা। সেই প্রেমে ধাক্কা খেয়ে বিষণ্ণতায় ভোগে এই বয়সী ছেলে-মেয়েরা।

ঘ) বড়রা বকা-ঝকা করলে অপমানহীনতায় ভোগে।

ডিপ্রেশনের লক্ষণ :

ক) এক্ষেত্রে ব্যক্তির মন-মেজাজের পরিবর্তন হয়। সবকিছুতেই নেতিবাচক মনোভাব দেখা যায়।

খ) তারা সাধারণত স্বাভাবিক কাজ করতে অক্ষম হয়ে পড়ে, শক্তিহীন, অলস ও নিস্তেজ বোধ করে।

গ) ঘুম হয় না। শরীরে ক্লান্তি অনুভব হয়।

ঘ) রোজকার খাদ্যাভাসে অনীহা দেখা দেয়। নিজের প্রতি খেয়াল রাখার ইচ্ছা থাকে না।

ঙ) যেকোনও কাজে মনোযোগের অভাব দেখা দেয়।

চ) অল্প কিছুতেই কেঁদে ফেলার ইচ্ছা হয়। কোনও কোনও ক্ষেত্রে বাঁচার ইচ্ছে চলে যায়।

ছ) অবসাদের সবথেকে বড়ো উপসর্গ হল, যেটা করতে সবচেয়ে বেশি ভালোলাগে সেটা না করার ইচ্ছা।

বিষণ্ণতা দূর করার উপায় :

শুধুমাত্র টিনএজারই নয়, মধ্যবয়স্ক থেকে বয়স্ক প্রত্যেকেই কখনও না কখনও ডিপ্রেশনে ভুগে থাকেন। বিষণ্ণতা যেমন মানুষের ক্ষতি করে, তেমনই এর থেকে মুক্তির উপায়ও আছে। এই উপায়গুলি মেনে চললে ডিপ্রেশন থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

ক) মিউজিক মানুষের মেজাজকে নিমেষের মধ্যে বদলাতে পারে| এটা ওষুধের মতো কাজ করে ডিপ্রেশনের সময়। মিউজিক শুনলে আমাদের মন শান্ত হয়ে যায়। মস্তিষ্ক আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

খ) পর্যাপ্ত সময় ঘুমানো উচিত। সঠিক সময় খাবার খাওয়া উচিত।

গ) বাইরে ঘুরতে যাওয়া ও নিজের জন্য শপিং করতে পারেন।

ঘ) রোজ ডায়রি লেখার অভ্যাস করুন।

ঙ) হাসির সিনেমা বা কমিকস্ পড়লে মন ভালো থাকে।

চ) শিশুদের সঙ্গে সময় কাটান।

ছ) নেতিবাচক চিন্তা থেকে দূরে থাকুন।

স্তন ক্যান্সার সনাক্ত করণে শতভাগ নিশ্চয়তা দিচ্ছে AI প্রযুক্তি

স্তন ক্যান্সার সনাক্ত করণে শতভাগ নিশ্চয়তা দিচ্ছে AI প্রযুক্তি


ক্যান্সার বা কর্কটরোগ খুব সাংঘাতিক একটি রোগ। এখনও পর্যন্ত এই রোগে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার সহজে ধরা পড়ে না। ফলে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ভালো চিকিৎসা করালেও তা সারানো সম্ভব হয় না, বরং কোনও কোনও সময় তা মারাত্মক আকার ধারণ করে। 


বাস্তবিক অর্থে, এখনও পর্যন্ত ক্যান্সার চিকিৎসায় পুরোপুরি কার্যকর কোনও ওষুধ আবিষ্কৃত হয়নি। ক্যান্সার সারানোর জন্য বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়। তবে প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পরলে এই রোগ সারানোর সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায়। বর্তমানে ক্যান্সার নিয়ে প্রচুর গবেষণা হচ্ছে এবং এ সম্পর্কে নতুন নতুন অনেক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। ক্যান্সার কী ? বিশ্বের সমস্ত প্রাণীর শরীর অসংখ্য ছোটো ছোটো কোষের মাধ্যমে তৈরি। এই কোষগুলো একটা নির্দিষ্ট সময় মারা যায়। এই পুরনো কোষগুলোর জায়গায় নতুন কোষ জন্মায়। সাধারণত, কোষগুলো নিয়ন্ত্রিতভাবে এবং নিয়মমতো বিভাজিত হয়ে নতুন কোষের জন্ম দেয়। যখন এই কোষগুলো কোনও কারণে অনিয়ন্ত্রিতভাবে বাড়তে থাকে তখনই ত্বকের নিচে মাংসের দলা অথবা চাকা দেখা যায়। একেই টিউমার বলে। এই টিউমার বিনাইন বা ম্যালিগন্যান্ট হতে পারে। এই ম্যালিগন্যান্ট টিউমারকেই ক্যান্সার বলে। ক্যান্সার অনেক ধরনের হয়। স্তন ক্যান্সার তার মধ্যে একটি। 




স্তন ক্যান্সার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মেয়েদের হয়। স্তন ক্যান্সারে নারীদের মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। নিয়মিত ব্যায়াম, শরীরের ওজন নিয়ণ্ত্রণ ও সন্তান হওয়ার পর অন্তত ছয় মাস বাচ্চাকে স্তন্যপান করালে কিছুটা হলেও স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায়। এই রোগে নারীদের সচেতন করার পাশাপাশি এখন পুরুষদেরকেও সচেতন করা হচ্ছে।

যদিও পুরুষদের স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হার খুবই কম। দেখা গেছে, যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর ৪০ হাজার মহিলা স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, সেই তুলনায় মাত্র ৩০০ জন পুরুষ এই রোগে আক্রান্ত হন।

 স্তন ক্যান্সারের উপসর্গ -
ক) স্তনের কোনও অংশ চাকা চাকা হয়ে যাওয়া অথবা স্তনের মধ্যে লাম্প দেখা যায়।
খ)স্তনের আকৃতিতে পরিবর্তন হয়।
গ) স্তনবৃন্তের আকারে পরিবর্তন হয়।
ঘ) স্তনবৃন্ত থেকে রক্ত বা তরল পদার্থ নিঃসৃত হয়।
ঙ) স্তনবৃন্তের আশেপাশে ফুসকুড়ি বেরোনো।
চ) স্তনের ভেতরের অংশ শক্ত বোধ হয়।
ছ) স্তনের চামড়ার রং পরিবর্তন হওয়া বা চামড়া মোটা হয়ে যায়।


 চিকিৎসা পদ্ধতি - প্রাথমিক পর্যায়ে এই রোগ ধরা পড়লে শতকরা ৯০-৯৫ ভাগ রোগী সুস্থ হতে পারেন। এই ক্যান্সারের চিকিৎসা সাধারণত- সার্জারি, কেমোথেরাপি, রেডিওথেরাপি, হরমোন থেরাপি এগুলির মাধ্যমে হয়ে থাকে।
 সার্জারি : স্তন ক্যান্সারের যেকোনো পর্যায়েই রোগীর সার্জারি করার প্রয়োজন হতে পারে। অনেক সময় শুধু টিউমার কেটে ফেলা হলেও কিছু ক্ষেত্রে পুরো স্তনই বাদ দেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে।

কেমোথেরাপি : বেশিরভাগ ক্যান্সার রোগীকেই কেমোথেরাপি নিতে হয়। যদিও, কেমোথেরাপিতে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে, তবুও রোগীকে সুস্থ করে তোলার জন্য কেমোথেরাপির বিকল্প নেই। রোগীর শারীরিক অবস্থা, কেমোথেরাপির কার্যকারিতা, রোগীর আর্থিক অবস্থা ইত্যাদি বিবেচনা করেই ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা উপযুক্ত পরামর্শ দেন।

রেডিওথেরাপি : বিশেষ ধরনের মেশিনের মাধ্যমে রোগীদের রেডিওথেরাপি চিকিৎসা দেওয়া হয়। এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তুলনামূলকভাবে কম। সাধারণ কেমোথেরাপির পরই রেডিওথেরাপি দেওয়া হয়।

হরমোন থেরাপি : সব স্তন ক্যান্সারের রোগীর জন্য হরমোন থেরাপির দরকার নেই। ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমেই শনাক্ত করেন হরমোন চিকিৎসা কোন রোগীর দরকার। ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের চেয়েও নিখুঁতভাবে ক্যান্সার শনাক্ত করতে সক্ষম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এ.আই (Artificial Intelligence) নামক অত্যাধুনিক প্রযুক্তি। চিকিৎসা ক্ষেত্রে এ.আই-এর ব্যবহার ক্যান্সার রোগে মৃত্যুর সংখ্যা বছরে ২২ হাজার কমাতে পারে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।


 সম্প্রতি লন্ডনের একদল গবেষক জানিয়েছে, অত্যাধুনিক এ.আই প্রযুক্তির দ্বারা স্তন ক্যান্সারের বিভিন্ন দিকগুলি শনাক্ত করা গেছে। এর ফলে, পাঁচ ধরনের স্তন ক্যান্সারকে আলাদাভাবে চিন্হিত করা সম্ভব হয়েছে, যেগুলিকে এতদিন একই ধরনের অন্তর্গত বলে গণ্য করা হত। এই প্রতিটা ধরন কীভাবে ভিন্ন ভিন্ন চিকিৎসা পদ্ধতিতে সাড়া দিতে পারে , সে বিষয়েও এই গবেষণার ফলাফল আলোকপাত করেছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অস্ত্রোপচারের সংখ্যা ৩০ শতাংশেরও বেশি কমিয়ে দিয়েছে। শুধু যুক্তরাজ্যেই প্রতি বছর ৪০ হাজার নারী স্তন ক্যান্সারে মারা যান। কিন্তু, এই প্রযুক্তির মাধ্যমে স্তন ক্যান্সার শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এর ফলে, রোগীদের দ্রুত সুস্থ করে তোলা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

source:

Sunday, August 11, 2019

নিমেই রয়েছে বেশ কয়েকটি রোগের সমাধান, ম্যাজিকের মতো সারবে অসুখ

নিমেই রয়েছে বেশ কয়েকটি রোগের সমাধান, ম্যাজিকের মতো সারবে অসুখ

নিমপাতার গুণাগুণ সম্পর্কের নানা লোকের নানা মত। কিন্তু বাড়ির পাশেই যদি নিমগাছ থাকে তাহলে আপনি খুবই সৌভাগ্যবান। কারণ বেশ কয়েকটি উপকারে লাগতে পারে নিমপাতা। সেগুলি কী জেনে নিন— 


• কেটে বা ছড়ে গেলে বা পোকার কামড় খেলে ক্ষতস্থানে নিমপাতা বাটা লাগিয়ে নিন। ইনফেকশন হবে না। ক্ষত তাড়াতাড়ি শুকোবে।

• খুশকির সমস্যা থাকলে নিমপাতা জলে সেদ্ধ করুন। জলের রং সবুজ হলে নামিয়ে ঠান্ডা করুন। শ্যাম্পু করার পরে ওই জল দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

• চোখ জ্বালা করলে বা চোখ লাল হয়ে গেলে নিমপাতা জলে সেদ্ধ করুন। জল ঠান্ডা হলে, তাই দিয়ে চোখ ধুলে উপকার পাবেন।

• ব্রণ বা মুখে কালো ছোপ থাকলে নিমপাতা বাটা লাগিয়ে নিন।

• মধুর মধ্যে নিম পাতার রস মেশান। কানের ভিতর ইনফেকশন হলে বা কানের ভিতরে চুলকানি হলে এই মিশ্রণের দু-চার ফোঁটা কানের ভিতরে লাগান।

• ত্বকে বিভিন্ন ধরনের রোগ হয়। কাঁচা হলুদ বাটার সঙ্গে নিমপাতা বাটা মিশিয়ে ব্যবহার করুন।

• নিমপাতা কুচি করে এক গ্লাস জলের সঙ্গে মিশিয়ে খান। এতে শরীরে রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বাড়বে।

• দাঁতে সমস্যা হলে বা মুখে দুর্গন্ধ হলে নিম ডাল দিয়ে দাঁত মাজুন।

• ডায়াবেটিস রোগীদের জন্যও নিমপাতা খুব উপকারী। নিয়ম করে নিমপাতা খান।

• পেটের সমস্যা হলেও নিমপাতা খেলে উপকার পাবেন। 

Friday, August 9, 2019

৫টি ঔষধি গাছ বাড়িতে চাষ করুন!

৫টি ঔষধি গাছ বাড়িতে চাষ করুন!

অনেক অনেক কাল আগে থেকেই নিজেদের ছোটখাটো পরিসরে নানারকম ঔষধি গাছের চাষ করতেন চিকিৎসকেরা। আবিষ্কার করতেন চিরচেনা সব গাছের নানান চমত্কার ক্ষমতা। বর্তমানে ঔষধি গাছ নিয়ে কাজ করার সেই ঘরোয়া পরিবেশটা আর নেই। তবু কে না চায় এই ব্যস্ততম আর জঞ্জালে ভরা শহরে নিজের বাড়িতেই কিছু ঔষধি গাছের চাষ করতে, নিজেকে আর নিজের পরিবারকে সুস্থ রাখতে? যদি আপনিও তাই চান তাহলে আপনার জন্যেই দেওয়া হল ঘরেই চাষযোগ্য কিছু চমৎকার ও কার্যকরী ঔষধি গাছের বর্ণনা।



পুদিনা

পুদিনাকে চেনেনা এমন খুব কম মানুষই আছে আমাদের দেশে। নিত্যনৈমিত্তিক নানা খাবার তৈরি করতে পুদিনাকে ব্যবহার করি আমরা সবাই। তবে বাড়িতে এই পুদিনা পাতা চাষ করলে কেবল খাবারকে আকর্ষণীয় করতেই নয়, নানারকম কাটা-ছেঁড়ার ক্ষেত্রে এবং হারিয়ে যাওয়া খিদেকে ফিরিয়ে আনতেও সাহায্য করবে এটি।



ঘৃতকুমারী
গোটা বিশ্ব জুড়ে এই গাছের জুস বা রস ক্যাপসুল বা জেলের আকারে বিক্রি হচ্ছে। এই জেলের ভেতরে আছে বিশটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা থেকে বিজ্ঞানীরা বলেন প্রাণের সৃষ্টি। এই ২০ অ্যামিনো অ্যাসিডের আটটি দেহের মাঝে তৈরি হয় না। এটা বাইরে থেকে খাদ্যের আকারে গ্রহণ করতে হয়। এটা আসে ঘৃতকুমারী থেকে। এই জেলের রয়েছে ত্বকের যাবতীয় সমস্যা দূর করার ক্ষমতা। অ্যালোভেরা জেল দেহের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে পরিশোধিত করে, ক্ষত সারাতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরার আশ্চর্য ঔষধি গুণ রক্তে কোলেস্টেরল ও চিনির মাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় আনতে সাহায্য করেছে; রক্তচাপও কমিয়ে আনছে। ”অ্যালোভেরা জেলী” ব্যবহারকারীদের তাদের যে কোনো চর্মরোগ, মেছতা, ব্রণ দূর করতে দেখা গেছে।



টমেটো


টমেটোর মধ্যে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যেমন- লাইকোপেন। অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট দেহের ফ্রি রেডিকেলস দূর করে এবং ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমায়। ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত হলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। টমেটোর কারণে ডিএনএ সহজে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না। টমেটোর মধ্যে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ ভিটামিন সি। যেটা শরীরের রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। অসুস্থ শরীর থেকে আরোগ্য পেতে টমেটো খেতে পারেন, এটা রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে।



ডালিম
ডালিম গাছের শেকড়, ছাল, ফলের খোসা আমাশয় ও উদরাময়ের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর ফুল ঋতুস্রাবজনিত সমস্যার ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ঠান্ডাজনিত রোগ, শ্বাসকষ্ট, কাশি এবং বাতের ব্যথা দূর করতে ডালিমের জুড়ি নেই। ডালিম অরুচি দূর করে ও খিদে বাড়ায়। এর রস বমি বন্ধ করে এবং অনবরত বমির ফলে শরীরে যে ক্লান্তি আসে তা দূর করে। এতে উপস্থিত ভিটামিন সি ও বি দাঁত এবং মুখের রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। এর আয়রন, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম ও ফোলেট দেহে রক্ত তৈরিতে সহায়তা করে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এছাড়া ডালিম বার্ধক্য বিলম্বিত করতেও সহায়তা করে এবং রক্তের তারল্য ঠিক রাখে এবং হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। ডালিমের রস খুবই ভালো ত্বক পরিষ্কারক। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতেও ডালিমের রস কার্যকর।



পালং


পালং শাকে প্রচুর ভিটামিন ‘সি’ এবং বিটা কেরোটিন থাকায় তা কোলনের কোষগুলোকে রক্ষা করে। বাতের ব্যথা, অস্টিওপোরোসিস, মাইগ্রেশন, মাথাব্যথা দূর করতে প্রদাহনাশক হিসেবে পালং শাক কাজ করে। এই শাক স্মৃতিশক্তি এবং মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে খুবই কার্যকর। এতে প্রচুর পরিমাণ আয়রন ও ভিটামিন ‘সি’ থাকায় রক্তস্বল্পতা দূর করতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে এবং পেট পরিষ্কার রাখতে অপরিহার্য। তাছাড়া রক্ত তৈরিতে সাহায্য করে, দৃষ্টিশক্তিও বাড়ায়। পালং শাকে ১৩ প্রকার ফ্লাভোনয়েডস আছে যা ক্যান্সার প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে। ডায়াবেটিক রোগীদের জন্যও পালং শাক খুব উপকারী। তবে যাদের ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যা আছে তাদের পালং শাক খাওয়ার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিৎ।

Thursday, August 8, 2019

জেনে নিন কাঁচা ছোলার স্বাস্থ্যগুণের কিছু কথা!

পার্ক অথবা অন্য কোনো জায়গায় বেড়াতে গেলে চানাচুরওয়ালার কাছ থেকে আমরা কাঁচা ছোলা কিনে খাই। এটি যেমন সুস্বাদু, তেমনই পেটও ভরে যায়। কিন্তু কাঁচা ছোলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা অনেকেই খুব ভালোভাবে অবগত নই। উচ্চমাত্রার প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার ছোলা। কাঁচা, সেদ্ধ বা তরকারি রান্না করেও খাওয়া যায়। কাঁচা ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-এ, ভিটামিন- বি১, এবং বি২, খনিজ লবণ, ম্যাগনেশিয়াম ও ফসফরাস। আরও আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি, যা দীর্ঘক্ষণ ধরে শরীরে শক্তির জোগান দিতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে ছোলার ফ্যাট বেশিরভাগই আনস্যাচুরেটেড। এ ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেও ক্ষতিকারক নয়। বরং রক্তের চর্বি কমিয়ে ফেলতে ভূমিকা রাখে। ছোলা খাওয়ার অল্প সময়ের মধ্যেই হজম হয়। ছোলার আঁশ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। ছোলায় বেশ ভালো পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড থাকায় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। খাদ্যনালিতে ক্ষতিকর জীবাণু দূর করে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমাতে সাহায্য করে ছোলা। এটির শর্করা গ্লুকোজ হয়ে দ্রুত রক্তে যায় না। তাই ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য ছোলা খুবই উপকারী খাবার। কাঁচা ছোলা ভিজিয়ে, খোসা ছাড়িয়ে, কাঁচা আদার সঙ্গে খেলে শরীরে একই সঙ্গে আমিষ ও অ্যান্টিবায়োটিক গঠন হয়। আমিষ মানুষকে শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান বানায়। আর অ্যান্টিবায়োটিক যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় আমিষ প্রায় ১৮ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট প্রায় ৬৫ গ্রাম, ফ্যাট মাত্র ৫ গ্রাম, ২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’ প্রায় ১৯২ মাইক্রোগ্রাম এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-১ ও বি-২ আছে।     জেনে নিন ছোলার কিছু স্বাস্থ্যগুণের কথা: ছোলা পুষ্টিকর একটি ডাল। এটি মলিবেডনাম এবং ম্যাঙ্গানিজের চমৎকার উৎস। ছোলাতে প্রচুর পরিমাণে ফলেট এবং খাদ্য আঁশ আছে সেই সাথে আছে আমিষ, ট্রিপট্যোফান, কপার, ফসফরাস এবং আয়রণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ১/২ কাপ ছোলা, শিম এবং মটর খায় তাদের পায়ের আর্টারিতে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়। তাছাড়া ছোলায় অবস্থিত আইসোফ্লাভন ইস্কেমিক স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আর্টারির কার্যক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। আবার তাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ছোলার শর্করা ভাল। কারণ ১০০ গ্রাম ছোলায় আছে ১৭ গ্রাম আমিষ বা প্রোটিন, ৬৪ গ্রাম শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট এবং ৫ গ্রাম ফ্যাট বা তেল। ছোলার শর্করা বা কার্বোহাইডেটের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় ক্যালসিয়াম আছে প্রায় ২০০ মিলিগ্রাম, লৌহ ১০ মিলিগ্রাম, ও ভিটামিন এ ১৯০ মাইক্রোগ্রাম। এছাড়া আছে ভিটামিন বি-১, বি-২, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম। এর সবই শরীরের উপকারে আসে। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখানো হয়, যে সকল অল্পবয়সী নারী বেশি পরিমাণে ফলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবার খান, তাদের হাইপারটেনশনের প্রবণতা কমে যায়। যেহেতু ছোলায় বেশ ভাল পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড থাকে সেহেতু ছোলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। এছাড়া ছোলা বয়সসন্ধি পরবর্তীকালে মেয়েদের হার্ট ভাল রাখতেও সাহায্য করে।    কোরিয়ান গবেষকরা তাদের গবেষণায় প্রমাণ করেছেন, বেশি পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড খাবারের সাথে গ্রহণের মাধ্যমে নারীরা কোলন ক্যান্সার এবং রেক্টাল ক্যান্সার এর ঝুঁকি থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারেন। এছাড়া ফলিক অ্যাসিড রক্তের অ্যালার্জির পরিমাণ কমিয়ে অ্যাজমার প্রকোপও কমিয়ে দেয়। আর তা্ই নিয়মিত ছোলা খান এবং সুস্থ থাকুন। এছাড়াও এতে ভিটামিন ‘বি’ও আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। ভিটামিন ‘বি’ কমায় মেরুদণ্ডের ব্যথা, স্নায়ুর দুর্বলতা। ছোলা শরীরের অপ্রয়োজনীয় কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়। ছোলার ফ্যাট বা তেলের বেশির ভাগ পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট ছাড়া ছোলায় আরও আছে বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ লবণ। অস্ট্রেলিয়ান গবেষকরা দেখিয়েছেন, খাবারে ছোলা যুক্ত করলে টোটাল কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায়। ছোলাতে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ধরনের খাদ্য আঁশ আছে যা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। আঁশ, পটাসিয়াম, ভিটামিন ‘সি’ এবং ভিটামিন বি-৬ হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়। এর ডাল আঁশসমৃদ্ধ যা রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ৪০৬৯ মিলিগ্রাম ছোলা খায় হৃদরোগ থেকে তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৯% কমে যায়।     যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে এর ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। শ্বাসনালীতে জমে থাকা পুরনো কাশি বা কফ ভালো হওয়ার জন্য কাজ করে শুকনা ছোলা ভাজা। ছোলা বা বুটের শাকও শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। প্রচুর পরিমাণে ডায়াটারি ফাইবার বা আঁশ রয়েছে এই ছোলায় ও ছোলার শাকে। ডায়াটারি ফাইবার খাবারে অবস্থিত পাতলা আঁশ, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। যাদের রক্তে চর্বি বেড়ে গেছে তারা নিয়মিত ছোলা খাওয়ার অভ্যাস করুন, দেখবেন উপকার পাবেন। ছোলার ফ্যাটের বেশিরভাগই পলি আনস্যাচুয়েটেড। এই ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়, বরং রক্তের চর্বি কমায়। ছোলায় শর্করার গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকায় শরীরে প্রবেশ করার পর অস্থির ভাব দূর হয়। সুতরাং হঠাৎ যদি দেহের মধ্যে অস্থির অনুভব হয়, তাহলে ছোলা খেয়ে নিতে পারেন। দেখবেন উপকার পাবেন। সালফার নামক খাদ্য উপাদান থাকে এই ছোলাতে। সালফার মাথা গরম হয়ে যাওয়া, হাত-পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া কমাতে অনেক সাহায্য করে থাকে। তাই জাদের হাতে পায়ে জ্বালা পোড়া অনুভব হয় তারা নিয়মিত ছোলা খান।     ছোলা কৃমিনাশক হিসেবেও কাজ করে। সারা রাত ছোলা ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে খেলে কৃমি মারা যায়। সুতরাং কৃমির জন্য আর চিন্তা করতে হবে না। কাচা ছোলা সকালে খেলে কৃমি মারা যাবে। কাঁচা ছোলায় রয়েছে জ্বর ভালো করার ক্ষমতা। সুতরাং কেউ যদি জ্বর এ ভোগেন তাহলে কাঁচা ছোলা খেতে পারেন। রূপচর্চায়ও ছোলা ব্যবহার করেন অনেকে। সাবানের মতো ছোলা শরীরের চামড়া পরিষ্কার করে। ছোলা বা মটর দানার বেসন পানিতে ভিজিয়ে গোসলের আগে শরীরে মাখলে শরীর থেকে ময়লা পরিস্কার হয়ে যায়। ছোলা ত্বকের লাবণ্য ফিরিরে আনে। ছোলার খোসা সেদ্ধ করে সেই সেদ্ধ পানি বার বার খেলে পিত্ত রোগ ভালো হয়। মুখে ব্রণ বা মেছতা হরে ছোলা ভিজিয়ে বেটে মুখে লাগান। এতে ব্রণ দূর হয় এবং মেছতার দাগ মুছে যায়। এছাড়া ছোলা বাঁটা মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের সৌন্দর্য ও টান টান ভাব ফিরে আসে। বদহজমের কারণে অনেকের গায়ের রঙ কালো হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে পরিষ্কার পানিতে ছোলা সেদ্ধ করে সেই পানি খেলে বদহজম থাকবে না এবং গায়ের কালচে ভাবটিও কেটে যাবে।

পার্ক অথবা অন্য কোনো জায়গায় বেড়াতে গেলে চানাচুরওয়ালার কাছ থেকে আমরা কাঁচা ছোলা কিনে খাই। এটি যেমন সুস্বাদু, তেমনই পেটও ভরে যায়। কিন্তু কাঁচা ছোলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা অনেকেই খুব ভালোভাবে অবগত নই। উচ্চমাত্রার প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার ছোলা। কাঁচা, সেদ্ধ বা তরকারি রান্না করেও খাওয়া যায়। কাঁচা ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-এ, ভিটামিন- বি১, এবং বি২, খনিজ লবণ, ম্যাগনেশিয়াম ও ফসফরাস। আরও আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি, যা দীর্ঘক্ষণ ধরে শরীরে শক্তির জোগান দিতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে ছোলার ফ্যাট বেশিরভাগই আনস্যাচুরেটেড। এ ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেও ক্ষতিকারক নয়। বরং রক্তের চর্বি কমিয়ে ফেলতে ভূমিকা রাখে। ছোলা খাওয়ার অল্প সময়ের মধ্যেই হজম হয়। ছোলার আঁশ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। ছোলায় বেশ ভালো পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড থাকায় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। খাদ্যনালিতে ক্ষতিকর জীবাণু দূর করে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমাতে সাহায্য করে ছোলা। এটির শর্করা গ্লুকোজ হয়ে দ্রুত রক্তে যায় না। তাই ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য ছোলা খুবই উপকারী খাবার। কাঁচা ছোলা ভিজিয়ে, খোসা ছাড়িয়ে, কাঁচা আদার সঙ্গে খেলে শরীরে একই সঙ্গে আমিষ ও অ্যান্টিবায়োটিক গঠন হয়। আমিষ মানুষকে শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান বানায়। আর অ্যান্টিবায়োটিক যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় আমিষ প্রায় ১৮ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট প্রায় ৬৫ গ্রাম, ফ্যাট মাত্র ৫ গ্রাম, ২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’ প্রায় ১৯২ মাইক্রোগ্রাম এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-১ ও বি-২ আছে।



জেনে নিন ছোলার কিছু স্বাস্থ্যগুণের কথা:
ছোলা পুষ্টিকর একটি ডাল। এটি মলিবেডনাম এবং ম্যাঙ্গানিজের চমৎকার উৎস। ছোলাতে প্রচুর পরিমাণে ফলেট এবং খাদ্য আঁশ আছে সেই সাথে আছে আমিষ, ট্রিপট্যোফান, কপার, ফসফরাস এবং আয়রণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ১/২ কাপ ছোলা, শিম এবং মটর খায় তাদের পায়ের আর্টারিতে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়। তাছাড়া ছোলায় অবস্থিত আইসোফ্লাভন ইস্কেমিক স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আর্টারির কার্যক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। আবার তাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ছোলার শর্করা ভাল। কারণ ১০০ গ্রাম ছোলায় আছে ১৭ গ্রাম আমিষ বা প্রোটিন, ৬৪ গ্রাম শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট এবং ৫ গ্রাম ফ্যাট বা তেল। ছোলার শর্করা বা কার্বোহাইডেটের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় ক্যালসিয়াম আছে প্রায় ২০০ মিলিগ্রাম, লৌহ ১০ মিলিগ্রাম, ও ভিটামিন এ ১৯০ মাইক্রোগ্রাম। এছাড়া আছে ভিটামিন বি-১, বি-২, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম। এর সবই শরীরের উপকারে আসে। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখানো হয়, যে সকল অল্পবয়সী নারী বেশি পরিমাণে ফলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবার খান, তাদের হাইপারটেনশনের প্রবণতা কমে যায়। যেহেতু ছোলায় বেশ ভাল পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড থাকে সেহেতু ছোলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। এছাড়া ছোলা বয়সসন্ধি পরবর্তীকালে মেয়েদের হার্ট ভাল রাখতেও সাহায্য করে।



কোরিয়ান গবেষকরা তাদের গবেষণায় প্রমাণ করেছেন, বেশি পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড খাবারের সাথে গ্রহণের মাধ্যমে নারীরা কোলন ক্যান্সার এবং রেক্টাল ক্যান্সার এর ঝুঁকি থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারেন। এছাড়া ফলিক অ্যাসিড রক্তের অ্যালার্জির পরিমাণ কমিয়ে অ্যাজমার প্রকোপও কমিয়ে দেয়। আর তা্ই নিয়মিত ছোলা খান এবং সুস্থ থাকুন। এছাড়াও এতে ভিটামিন ‘বি’ও আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। ভিটামিন ‘বি’ কমায় মেরুদণ্ডের ব্যথা, স্নায়ুর দুর্বলতা। ছোলা শরীরের অপ্রয়োজনীয় কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়। ছোলার ফ্যাট বা তেলের বেশির ভাগ পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট ছাড়া ছোলায় আরও আছে বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ লবণ। অস্ট্রেলিয়ান গবেষকরা দেখিয়েছেন, খাবারে ছোলা যুক্ত করলে টোটাল কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায়। ছোলাতে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ধরনের খাদ্য আঁশ আছে যা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। আঁশ, পটাসিয়াম, ভিটামিন ‘সি’ এবং ভিটামিন বি-৬ হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়। এর ডাল আঁশসমৃদ্ধ যা রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ৪০৬৯ মিলিগ্রাম ছোলা খায় হৃদরোগ থেকে তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৯% কমে যায়।



যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে এর ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। শ্বাসনালীতে জমে থাকা পুরনো কাশি বা কফ ভালো হওয়ার জন্য কাজ করে শুকনা ছোলা ভাজা। ছোলা বা বুটের শাকও শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। প্রচুর পরিমাণে ডায়াটারি ফাইবার বা আঁশ রয়েছে এই ছোলায় ও ছোলার শাকে। ডায়াটারি ফাইবার খাবারে অবস্থিত পাতলা আঁশ, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। যাদের রক্তে চর্বি বেড়ে গেছে তারা নিয়মিত ছোলা খাওয়ার অভ্যাস করুন, দেখবেন উপকার পাবেন। ছোলার ফ্যাটের বেশিরভাগই পলি আনস্যাচুয়েটেড। এই ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়, বরং রক্তের চর্বি কমায়। ছোলায় শর্করার গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকায় শরীরে প্রবেশ করার পর অস্থির ভাব দূর হয়। সুতরাং হঠাৎ যদি দেহের মধ্যে অস্থির অনুভব হয়, তাহলে ছোলা খেয়ে নিতে পারেন। দেখবেন উপকার পাবেন। সালফার নামক খাদ্য উপাদান থাকে এই ছোলাতে। সালফার মাথা গরম হয়ে যাওয়া, হাত-পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া কমাতে অনেক সাহায্য করে থাকে। তাই জাদের হাতে পায়ে জ্বালা পোড়া অনুভব হয় তারা নিয়মিত ছোলা খান।



ছোলা কৃমিনাশক হিসেবেও কাজ করে। সারা রাত ছোলা ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে খেলে কৃমি মারা যায়। সুতরাং কৃমির জন্য আর চিন্তা করতে হবে না। কাচা ছোলা সকালে খেলে কৃমি মারা যাবে। কাঁচা ছোলায় রয়েছে জ্বর ভালো করার ক্ষমতা। সুতরাং কেউ যদি জ্বর এ ভোগেন তাহলে কাঁচা ছোলা খেতে পারেন। রূপচর্চায়ও ছোলা ব্যবহার করেন অনেকে। সাবানের মতো ছোলা শরীরের চামড়া পরিষ্কার করে। ছোলা বা মটর দানার বেসন পানিতে ভিজিয়ে গোসলের আগে শরীরে মাখলে শরীর থেকে ময়লা পরিস্কার হয়ে যায়। ছোলা ত্বকের লাবণ্য ফিরিরে আনে। ছোলার খোসা সেদ্ধ করে সেই সেদ্ধ পানি বার বার খেলে পিত্ত রোগ ভালো হয়। মুখে ব্রণ বা মেছতা হরে ছোলা ভিজিয়ে বেটে মুখে লাগান। এতে ব্রণ দূর হয় এবং মেছতার দাগ মুছে যায়। এছাড়া ছোলা বাঁটা মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের সৌন্দর্য ও টান টান ভাব ফিরে আসে। বদহজমের কারণে অনেকের গায়ের রঙ কালো হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে পরিষ্কার পানিতে ছোলা সেদ্ধ করে সেই পানি খেলে বদহজম থাকবে না এবং গায়ের কালচে ভাবটিও কেটে যাবে।

লাল চায়ের যত ঔষুধি গুণাগুণ।

আমরা দিনে বেশ কয়েক কাপ চা খেয়ে থাকি। কিন্তু কেন আমাদের মন চা খেতে চায়। কারণ চায়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ক্যাফেইন, পটাশিয়াম ও এন্টি অক্সিডেন্ট। এগুলো শরীরকে চাঙ্গা রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও চায়ের বিভিন্ন ঔষধি গুণ তো রয়েছেই। চায়ে পাওয়া যায় ফ্ল্যাভোনয়েড নামক উপাদান। এ ফ্ল্যাভোনয়েডের ভেতর রয়েছে অনেক এন্টি অক্সিডেন্ট, এছাড়াও চায়ে রয়েছে পর্যাপ্ত পটাশিয়াম ও ক্যাফেইন। ক্লান্ত শরীরের অলসতা দূর করে শরীর ও মনকে চাঙ্গা রাখতে এ পটাশিয়াম ও ক্যাফেইনের তুলনা হয় না। অন্যদিকে এন্টি অক্সিডেন্ট আমাদের হৃদরোগের ঝুঁঁকি কমাতে সাহায্য করে।মজার তথ্য হলো, ভারত উপমহাদেশে ব্রিটিশ আমলে জনবহুল জায়গাগুলোতে ব্রিটিশ সরকার চায়ের ঔষধি গুণের নানা বিজ্ঞাপন লিখে আমাদের চা খাওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করত। সে সময় ইংরেজরা ভারতীয়দের চা পান করার জন্য বিনা পয়সায়    চা পান করাত ও চায়ের বিজ্ঞাপন দিত। সে সময়কার চায়ের বিজ্ঞাপনগুলোতে লেখা থাকত চা পান করলে টাইফয়েড, কলেরা, বসন্ত, আমাশয়সহ নানা রোগের প্রতিকার হয়। পরবর্তী সময় গবেষণায় দেখা গেছে, চা পান করলে কলেরা-টাইফয়েড ভালো না হলেও এতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় ও দেহের কোষের ক্ষয়রোধ হয়। তবে আমরা যারা নিয়মিত চা খাই তাদের অবশ্যই জানা প্রয়োজন, দুধ চায়ের চেয়ে লাল চা শরীরের জন্য বেশি কার্যকরী। সম্প্রতি ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালে বলা হয়েছে, লাল চা পান করলে মানুষের রক্তনালি ও ধমনির কার্যক্রম তাৎপর্যপূর্ণভাবে বৃদ্ধি পায়; কিন্তু চায়ে দুধ মেশালে চায়ের সুফল অনেক কমে যায়, কারণ রক্ত পরিবহনতন্ত্রের জন্য চায়ের উপকারিতার বিপরীতে কাজ করে। অন্যদিকে দুধের প্রোটিন চায়ের এন্টি অক্সিডেন্টের সঙ্গে মিশে যায় বলে চায়ের বেশিরভাগ ঔষুধি গুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই বলা যায়, দুধ চা পান করার চেয়ে লাল চা পান করাই শরীরের জন্য বেশি ভালো। তাই যারা চা পান করে শরীরে ঔষধি উপকার পেতে চান তারা অবশ্যই দুধবিহীন চা বা লাল চা পান করুন, সেইসঙ্গে চাঙ্গা শরীর ও মন নিয়ে সুস্থ থাকুন।

আমরা দিনে বেশ কয়েক কাপ চা খেয়ে থাকি। কিন্তু কেন আমাদের মন চা খেতে চায়। কারণ চায়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ক্যাফেইন, পটাশিয়াম ও এন্টি অক্সিডেন্ট। এগুলো শরীরকে চাঙ্গা রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও চায়ের বিভিন্ন ঔষধি গুণ তো রয়েছেই। চায়ে পাওয়া যায় ফ্ল্যাভোনয়েড নামক উপাদান। এ ফ্ল্যাভোনয়েডের ভেতর রয়েছে অনেক এন্টি অক্সিডেন্ট, এছাড়াও চায়ে রয়েছে পর্যাপ্ত পটাশিয়াম ও ক্যাফেইন। ক্লান্ত শরীরের অলসতা দূর করে শরীর ও মনকে চাঙ্গা রাখতে এ পটাশিয়াম ও ক্যাফেইনের তুলনা হয় না। অন্যদিকে এন্টি অক্সিডেন্ট আমাদের হৃদরোগের ঝুঁঁকি কমাতে সাহায্য করে।মজার তথ্য হলো, ভারত উপমহাদেশে ব্রিটিশ আমলে জনবহুল জায়গাগুলোতে ব্রিটিশ সরকার চায়ের ঔষধি গুণের নানা বিজ্ঞাপন লিখে আমাদের চা খাওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করত। সে সময় ইংরেজরা ভারতীয়দের চা পান করার জন্য বিনা পয়সায়



চা পান করাত ও চায়ের বিজ্ঞাপন দিত। সে সময়কার চায়ের বিজ্ঞাপনগুলোতে লেখা থাকত চা পান করলে টাইফয়েড, কলেরা, বসন্ত, আমাশয়সহ নানা রোগের প্রতিকার হয়। পরবর্তী সময় গবেষণায় দেখা গেছে, চা পান করলে কলেরা-টাইফয়েড ভালো না হলেও এতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় ও দেহের কোষের ক্ষয়রোধ হয়। তবে আমরা যারা নিয়মিত চা খাই তাদের অবশ্যই জানা প্রয়োজন, দুধ চায়ের চেয়ে লাল চা শরীরের জন্য বেশি কার্যকরী। সম্প্রতি ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালে বলা হয়েছে, লাল চা পান করলে মানুষের রক্তনালি ও ধমনির কার্যক্রম তাৎপর্যপূর্ণভাবে বৃদ্ধি পায়; কিন্তু চায়ে দুধ মেশালে চায়ের সুফল অনেক কমে যায়, কারণ রক্ত পরিবহনতন্ত্রের জন্য চায়ের উপকারিতার বিপরীতে কাজ করে। অন্যদিকে দুধের প্রোটিন চায়ের এন্টি অক্সিডেন্টের সঙ্গে মিশে যায় বলে চায়ের বেশিরভাগ ঔষুধি গুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই বলা যায়, দুধ চা পান করার চেয়ে লাল চা পান করাই শরীরের জন্য বেশি ভালো। তাই যারা চা পান করে শরীরে ঔষধি উপকার পেতে চান তারা অবশ্যই দুধবিহীন চা বা লাল চা পান করুন, সেইসঙ্গে চাঙ্গা শরীর ও মন নিয়ে সুস্থ থাকুন।

ব্যথার ওষুধ কতটা ক্ষতিকর আপনি জানেন?

ঘাড়, কোমর, হাঁটুসহ শারীরিক ব্যথাক্রান্ত বেশিরভাগ মানুষের ব্যথা কমানোর প্রধান অবলম্বন হয়ত ব্যথানাশক ওষুধ। কিন্তু আমরা কখনও কি ভেবে দেখেছি, ব্যথার ওষুধ কতটা ক্ষতিকর! ব্যথার ওষুধ গ্যাস্ট্রিক আলসার তৈরি করে অথবা কিডনীর ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব আছে এটা প্রায় সবার জানা। কিন্তু অতি সম্প্রতি আমেরিকান কার্ডিয়াক সোসাইটি জানাচ্ছে, সবচেয়ে সহনশীল ব্যথানাশক আইবুপ্রোফেনও হার্টঅ্যাটাকের জন্য দায়ী হতে পারে।     ব্যথার ওষুধের বিকল্প আছে কি : পৃথিবী যত উন্নত হচ্ছে মানুষ তত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসার দিকে ঝুঁকছে। সামান্য ব্যথা সারাতে কিডনী বা হৃদযন্ত্রকে আঘাত করতে কেউই চাইবেন না। তাই সারা বিশ্বে ব্যথার ওষুধবিহীন ব্যথার চিকিৎসা দিন দিন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে কারণ নির্ণয় করে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন ব্যথার চিকিৎসা করা যায়। কিছু সাধারণ শারীরিক ও কিছু প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার মাধ্যমেই খুব সহজেই ব্যথার প্রকৃত কারণ নির্নয় করা সম্ভব। আর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিলে বেশিরভাগ শারীরিক ব্যথার চিকিৎসা ব্যথানাশক ওষুধ ছাড়াই করা সম্ভব। গত কয়েক মাস আগে একজন ব্যথার রোগীর সঙ্গে পরিচিত হলাম যিনি কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে তিন মাস ব্যথানাশক সেবন করেছেন। তার অভিযোগ ছিল, ওষুধ খেয়ে সাময়িক মুক্তি মিলছে বটে কিন্তু ওষুধ বন্ধ করলে আবার ব্যথা ফিরে আসছে। ইতিহাস নিয়ে জানা গেল উনি দিনে ৯/১০ ঘণ্টা বসে কাজ করেন। তার বসার চেয়ার বদল, কিছু বিজ্ঞানসম্মত ব্যায়াম আর ইলেক্ট্রোথেরাপি তাকে ব্যথামুক্ত জীবন উপহার দিয়েছে।     শেষ কথা : শারীরিক ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার মূলমন্ত্র হল ব্যথার কারণ নির্ণয়। ব্যথার প্রকৃত কারণ নির্ণয়ে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য থাকুন।

ঘাড়, কোমর, হাঁটুসহ শারীরিক ব্যথাক্রান্ত বেশিরভাগ মানুষের ব্যথা কমানোর প্রধান অবলম্বন হয়ত ব্যথানাশক ওষুধ। কিন্তু আমরা কখনও কি ভেবে দেখেছি, ব্যথার ওষুধ কতটা ক্ষতিকর! ব্যথার ওষুধ গ্যাস্ট্রিক আলসার তৈরি করে অথবা কিডনীর ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব আছে এটা প্রায় সবার জানা। কিন্তু অতি সম্প্রতি আমেরিকান কার্ডিয়াক সোসাইটি জানাচ্ছে, সবচেয়ে সহনশীল ব্যথানাশক আইবুপ্রোফেনও হার্টঅ্যাটাকের জন্য দায়ী হতে পারে।



ব্যথার ওষুধের বিকল্প আছে কি : পৃথিবী যত উন্নত হচ্ছে মানুষ তত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসার দিকে ঝুঁকছে। সামান্য ব্যথা সারাতে কিডনী বা হৃদযন্ত্রকে আঘাত করতে কেউই চাইবেন না। তাই সারা বিশ্বে ব্যথার ওষুধবিহীন ব্যথার চিকিৎসা দিন দিন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে কারণ নির্ণয় করে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন ব্যথার চিকিৎসা করা যায়। কিছু সাধারণ শারীরিক ও কিছু প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার মাধ্যমেই খুব সহজেই ব্যথার প্রকৃত কারণ নির্নয় করা সম্ভব। আর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিলে বেশিরভাগ শারীরিক ব্যথার চিকিৎসা ব্যথানাশক ওষুধ ছাড়াই করা সম্ভব। গত কয়েক মাস আগে একজন ব্যথার রোগীর সঙ্গে পরিচিত হলাম যিনি কোমর ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে তিন মাস ব্যথানাশক সেবন করেছেন। তার অভিযোগ ছিল, ওষুধ খেয়ে সাময়িক মুক্তি মিলছে বটে কিন্তু ওষুধ বন্ধ করলে আবার ব্যথা ফিরে আসছে। ইতিহাস নিয়ে জানা গেল উনি দিনে ৯/১০ ঘণ্টা বসে কাজ করেন। তার বসার চেয়ার বদল, কিছু বিজ্ঞানসম্মত ব্যায়াম আর ইলেক্ট্রোথেরাপি তাকে ব্যথামুক্ত জীবন উপহার দিয়েছে।



শেষ কথা : শারীরিক ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার মূলমন্ত্র হল ব্যথার কারণ নির্ণয়। ব্যথার প্রকৃত কারণ নির্ণয়ে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য থাকুন।

স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেয়ে, সুস্থ ও স্মাট থাকুন।

প্রতি বছর বিশ্বে দেড় কোটি শিশু মারা যায় ক্ষুধার্ত অবস্থায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ ক্ষুধার্ত। প্রতি ৩.৬ সেকেন্ডে একজন মারা যায় ক্ষুধার তাড়নায়। পৃথিবীর প্রায় ১০০ কোটি মানুষ অপুষ্টিতে ভোগে। বিশ্বব্যাংকের এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, অপুষ্টিতে আক্রান্ত এসব মানুষের ৮০ শতাংশ শিশু ও মহিলা। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, উন্নয়নশীল ও দরিদ্র দেশগুলোর প্রায় ৫০ কোটি শিশু অপুষ্টিতে আক্রান্ত। প্রতিবছর ৫ বছরের কম বয়স্ক প্রায় ৮৫ লাখ শিশু নামেমাত্র বেঁচে থাকলেও উপবাসের কারণে কোনো না কোনো সময় মৃত্যুবরণের জন্য দিন গোনে।     এবার একটি বিপরীতধর্মী প্রসঙ্গ। ২০১০ সালের ফেব্র“য়ারিতে মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা যুক্তরাষ্ট্রের শিশুদের অতিশয় স্থূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। মেয়রদের সম্মেলনে বক্তৃতা প্রদানকালে তিনি বলেন, স্থূলতা মহামারী আকারে দেখা দিয়েছে এবং এই স্থূলতা আমেরিকার স্বাস্থ্য ও অর্থনীতির জন্য এক মহাবিপদ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। শরীরে মাত্রাতিরিক্ত চর্বি জমা হলে মানুষ অস্বাভাবিক মোটা হয়ে যায়। জেনেটিক বা জৈবিক কারণ ছাড়াও মানুষের জীবনপদ্ধতি স্থূলতার জন্য বিশেষভাবে দায়ী। সহজভাষায়, মানুষ খাবারের মাধ্যমে অতি বেশি পরিমাণে ক্যালরি গ্রহণ করার পর যৎসামান্য ক্যালরি খরচ করলে অর্থাৎ পর্যাপ্ত ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রম না করলে তার ওজন বাড়তে শুরু করে। অর্থাৎ ক্যালরি গ্রহণ ও খরচের মধ্যে ভারসাম্য থাকতে হবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা গেছে স্থূলতার সঙ্গে প্রাচুর্যের একটি নিবিড় যোগসূত্র রয়েছে। যাদের অনেক টাকাকড়ি আছে, তারা প্রচুর ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবার বেশি খায় এবং ঘন ঘন খায়। প্রয়োজনের তুলনায় অতি বেশি ক্যালরি শরীর কাজে লাগাতে পারে না। তাই বাড়তি ক্যালরি শরীর চর্বিতে রূপান্তরিত করে শরীরে পুঞ্জীভূত করে। যুক্তরাষ্ট্রে ঠিক এটিই ঘটে যাচ্ছে আর তা মিশেল ওবামার দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সরকারি পরিসংখ্যান মোতাবেক যুক্তরাষ্ট্রের ৩২ শতাংশ শিশু ও কিশোর স্থূলতায় আক্রান্ত। ৬ থেকে ১১ বছর বয়স্ক ২০ শতাংশ এবং ১২ থেকে ১৯ বছর বয়স্ক ১৮ শতাংশ শিশু-কিশোর স্থূল। যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে এসব শিশু-কিশোর মোটা মানুষ হিসেবে বেড়ে উঠবে এবং বাকি জীবন স্থূলতা নিয়ে কাটাবে। বিপদ আরও আছে। অতি স্থূল মানুষ সহজেই ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, স্ট্রোক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মৃত্যুবরণ করে। অতিকায় দেহ বা ওজন নিয়ে মানুষ বেশি চলাফেরা বা কাজকর্ম করতে পারে না। এতে করে কর্মক্ষমতা ও কর্মদক্ষতা হ্রাস পাওয়ার কারণে শারীরিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়। মিশেল ওবামার পরিকল্পনা মোতাবেক স্থূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার মৌলিক পদক্ষেপ হল কম খাওয়া এবং ওজন কমানোর জন্য বেশি পরিশ্রম বা ব্যায়াম করা। বেশি থাকতে কম খাওয়া- এ এক দুঃসাধ্য ব্যাপার।    আমি বহু দেশে গেছি। জাপান ছাড়া আর সব উন্নত দেশে মানুষের লাইফস্টাইল প্রায় একই রকম। জাপানিদের খাওয়া-দাওয়া সুষম ও স্বাস্থ্যসম্মত বলে সেখানে স্থূলতা এখনও মহামারী আকারে দেখা দেয়নি। কিন্তু অন্যান্য উন্নত দেশে, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে খাবার-দাবারের প্রাচুর্য চোখে পড়ার মতো, দামেও সস্তা। উন্নত বিশ্বের শিশু-কিশোর এমনকি প্রাপ্তবয়স্কদের প্রিয় ও আকর্ষণীয় খাবারের তালিকায় রয়েছে আইসক্রিম, জাঙ্ক ফুড ও প্রচুর চিনি সমৃদ্ধ কোমল পানীয়। প্রায়ই সবগুলো আইটেমই হয় জাম্বো সাইজের। ক্যালরিতে ভরপুর এসব খাবার ঘন ঘন খেলে যে কোনো শিশু-কিশোর অল্প সময়ের মধ্যে মোটা হতে শুরু করলেও তাদের খাবারের প্রতি অনীহা থাকে না এবং আকর্ষণ বাড়ে অতিমাত্রায়। খাবারের প্রতি আকর্ষণ মানুষকে আরও বেশি পরিমাণে খেতে প্রলুব্ধ করে। ফলে ওজনও বাড়ে সমানতালে।     আপনার শরীরে ওজন স্বাভাবিক আছে কি-না তা বুঝবেন কী করে? আসুন ঝটপট একটা অংক করে আপনাকে উত্তরটা বলে দিই। আপনার শরীরের ওজন স্বাভাবিক, না বেশি তা নির্ণয় করা হয় বিএমআই বা বডি মাস ইনডেক্স দিয়ে। বিএমআই নির্ণয়ের নিয়মটা মনে রাখবেন। শরীরের ওজনকে উচ্চতার বর্গফল দিয়ে ভাগ করলে যে ফল পাওয়া যাবে তাকে বিএমআই বলা হয়। স্বাভাবিক বিএমআই স্কেল হল ১৮.৫ থেকে ২৪.৯। ধরুন আপনার শরীরের ওজন ৬৮ কেজি এবং উচ্চতা ১.৭৩ মি.। আপনার বিএমআই হল ৬৮ ভাগ বা ২:৯৯ এবং ফলাফল ২২.৭৪। ফলাফল অনুসারে আপনার ওজন একদম পারফেক্ট। বিএমআই ২৪.৯-এর বেশি হলে আপনার শরীরের ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি এবং ১৮.৫-এর কম হলে ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে কম ধরা হবে। মনে রাখবেন, শরীরের ওজন কমিয়ে বা বাড়িয়ে বিএমআই স্বাভাবিক পর্যায়ে আনার সুযোগ রয়েছে আপনার।     বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে খাদ্যের সুষম বণ্টন কোনো সময়েই বাস্তবে রূপ লাভ করবে বলে আশা করার কারণ নেই। তাই এই অসম সমাজ ব্যবস্থায় কেউ না খেয়ে মরবে, আর কেউ অতিমাত্রায় খেয়ে মারা যাবে। দুটিই জাতীয় সংকট। এই সংকট উত্তরণে অশুভ ব্যবসায়িক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে এসেছে বিশ্বের ওষুধ কোম্পানিগুলো। কিছুদিন আগে এফডিএ (ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) একটি কোম্পানির স্থূলতা কমানোর ওষুধ বেলবিক বাজারজাত করার অনুমতি প্রদান করেছে।    ওজন কমানোর ওষুধগুলো সাধারণত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত হয় না। এ ধরনের বেশকিছু ওষুধের ইতিহাস ভালো নয়। যুক্তরাষ্ট্রের হেলথ রিসার্চ গ্র“পের পরিচালক ড. সিডনি ওলফ ওজন কমানোর কার্যকর ওষুধ আবিষ্কৃত হবে বলে আশাবাদী নন। তিনি বলেন, এমন কোনো ওষুধ পাওয়ার সম্ভাবনা শূন্য, যা শুধু নিরাপদে ওজন কমাবে অথচ কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকবে না।     স্থূলকায় লোকদের উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিস ছাড়াও স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি বেশি থাকে। ওজন কমানোর ওষুধ প্রদানের মাধ্যমে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি আরও অনেকগুণ বেড়ে যায়। এটা অনেকটা মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা-এর মতো। শুধু বেশি খাবার খাওয়ার জন্যই সব সময় ওজন বাড়ে না, ওজন বাড়ার সঙ্গে খাবার ছাড়াও আবেগ, জৈবিক, সামাজিক, মনস্তাত্ত্বিক, পরিবেশসহ আরও বহু কারণ জড়িয়ে আছে। সুতরাং এতগুলো বহুমুখী সমস্যা সমাধানের জন্য একটিমাত্র বড়ি আবিষ্কার রীতিমতো অসম্ভব ব্যাপার। বিশ্বায়নে যুগে আজকাল সব দেশেই ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবারের সঙ্গে লবণ, চিনি ও চর্বি জুড়ে তার স্বাদ বাড়ানো হচ্ছে। অন্যদিকে বিজ্ঞাপন ও সামাজিক স্ট্যাটাস প্রতিনিয়ত আমাদের অতিভোজনে প্ররোচিত করছে। লোভনীয় খাবারের ছবি ও বর্ণনা আমাদের লোভকে অতিমাত্রায় উসকে দিচ্ছে। তাই আমরা খাচ্ছি আর মোটা হচ্ছি।     এ অবস্থায় করণীয় কী? করণীয় একটা আছে। তা শক্ত হলেও অসম্ভব নয়। আমাদের লোভ সংবরণ করতে হবে। আমি বলি- যার জিহ্বা সংযত তার স্বাস্থ্য সুসংহত। আগে যেমন বলছি- শরীরের প্রয়োজনে অতিরিক্ত ক্যালরি গ্রহণ করলে তা জ্বালিয়ে দিতে হবে, জমতে দেয়া যাবে না। সুষম খাবার উৎকৃষ্ট খাবার। ক্যালরি জ্বালাতে হলে আমাদের একটু কষ্ট করতে হবে। আর তা হল ব্যায়াম ও শারীরিক পরিশ্রম। লাইফস্টাইল পরিবর্তন, সুষম খাবার, শারীরিক পরিশ্রম, ব্যায়াম মানুষকে শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট রাখে, সুস্থ রাখে। শরীর ফিট ও সুস্থ থাকলে মানুষকে দেখতেও সুন্দর ও স্মার্ট লাগে। আর এ দুনিয়ায় সুন্দর ও স্মার্ট থাকতে কে না চায়!

প্রতি বছর বিশ্বে দেড় কোটি শিশু মারা যায় ক্ষুধার্ত অবস্থায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ ক্ষুধার্ত। প্রতি ৩.৬ সেকেন্ডে একজন মারা যায় ক্ষুধার তাড়নায়। পৃথিবীর প্রায় ১০০ কোটি মানুষ অপুষ্টিতে ভোগে। বিশ্বব্যাংকের এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, অপুষ্টিতে আক্রান্ত এসব মানুষের ৮০ শতাংশ শিশু ও মহিলা। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, উন্নয়নশীল ও দরিদ্র দেশগুলোর প্রায় ৫০ কোটি শিশু অপুষ্টিতে আক্রান্ত। প্রতিবছর ৫ বছরের কম বয়স্ক প্রায় ৮৫ লাখ শিশু নামেমাত্র বেঁচে থাকলেও উপবাসের কারণে কোনো না কোনো সময় মৃত্যুবরণের জন্য দিন গোনে।



এবার একটি বিপরীতধর্মী প্রসঙ্গ। ২০১০ সালের ফেব্র“য়ারিতে মার্কিন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা যুক্তরাষ্ট্রের শিশুদের অতিশয় স্থূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। মেয়রদের সম্মেলনে বক্তৃতা প্রদানকালে তিনি বলেন, স্থূলতা মহামারী আকারে দেখা দিয়েছে এবং এই স্থূলতা আমেরিকার স্বাস্থ্য ও অর্থনীতির জন্য এক মহাবিপদ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। শরীরে মাত্রাতিরিক্ত চর্বি জমা হলে মানুষ অস্বাভাবিক মোটা হয়ে যায়। জেনেটিক বা জৈবিক কারণ ছাড়াও মানুষের জীবনপদ্ধতি স্থূলতার জন্য বিশেষভাবে দায়ী। সহজভাষায়, মানুষ খাবারের মাধ্যমে অতি বেশি পরিমাণে ক্যালরি গ্রহণ করার পর যৎসামান্য ক্যালরি খরচ করলে অর্থাৎ পর্যাপ্ত ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রম না করলে তার ওজন বাড়তে শুরু করে। অর্থাৎ ক্যালরি গ্রহণ ও খরচের মধ্যে ভারসাম্য থাকতে হবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা গেছে স্থূলতার সঙ্গে প্রাচুর্যের একটি নিবিড় যোগসূত্র রয়েছে। যাদের অনেক টাকাকড়ি আছে, তারা প্রচুর ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবার বেশি খায় এবং ঘন ঘন খায়। প্রয়োজনের তুলনায় অতি বেশি ক্যালরি শরীর কাজে লাগাতে পারে না। তাই বাড়তি ক্যালরি শরীর চর্বিতে রূপান্তরিত করে শরীরে পুঞ্জীভূত করে। যুক্তরাষ্ট্রে ঠিক এটিই ঘটে যাচ্ছে আর তা মিশেল ওবামার দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সরকারি পরিসংখ্যান মোতাবেক যুক্তরাষ্ট্রের ৩২ শতাংশ শিশু ও কিশোর স্থূলতায় আক্রান্ত। ৬ থেকে ১১ বছর বয়স্ক ২০ শতাংশ এবং ১২ থেকে ১৯ বছর বয়স্ক ১৮ শতাংশ শিশু-কিশোর স্থূল। যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে এসব শিশু-কিশোর মোটা মানুষ হিসেবে বেড়ে উঠবে এবং বাকি জীবন স্থূলতা নিয়ে কাটাবে। বিপদ আরও আছে। অতি স্থূল মানুষ সহজেই ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, স্ট্রোক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মৃত্যুবরণ করে। অতিকায় দেহ বা ওজন নিয়ে মানুষ বেশি চলাফেরা বা কাজকর্ম করতে পারে না। এতে করে কর্মক্ষমতা ও কর্মদক্ষতা হ্রাস পাওয়ার কারণে শারীরিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়। মিশেল ওবামার পরিকল্পনা মোতাবেক স্থূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার মৌলিক পদক্ষেপ হল কম খাওয়া এবং ওজন কমানোর জন্য বেশি পরিশ্রম বা ব্যায়াম করা। বেশি থাকতে কম খাওয়া- এ এক দুঃসাধ্য ব্যাপার।



আমি বহু দেশে গেছি। জাপান ছাড়া আর সব উন্নত দেশে মানুষের লাইফস্টাইল প্রায় একই রকম। জাপানিদের খাওয়া-দাওয়া সুষম ও স্বাস্থ্যসম্মত বলে সেখানে স্থূলতা এখনও মহামারী আকারে দেখা দেয়নি। কিন্তু অন্যান্য উন্নত দেশে, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে খাবার-দাবারের প্রাচুর্য চোখে পড়ার মতো, দামেও সস্তা। উন্নত বিশ্বের শিশু-কিশোর এমনকি প্রাপ্তবয়স্কদের প্রিয় ও আকর্ষণীয় খাবারের তালিকায় রয়েছে আইসক্রিম, জাঙ্ক ফুড ও প্রচুর চিনি সমৃদ্ধ কোমল পানীয়। প্রায়ই সবগুলো আইটেমই হয় জাম্বো সাইজের। ক্যালরিতে ভরপুর এসব খাবার ঘন ঘন খেলে যে কোনো শিশু-কিশোর অল্প সময়ের মধ্যে মোটা হতে শুরু করলেও তাদের খাবারের প্রতি অনীহা থাকে না এবং আকর্ষণ বাড়ে অতিমাত্রায়। খাবারের প্রতি আকর্ষণ মানুষকে আরও বেশি পরিমাণে খেতে প্রলুব্ধ করে। ফলে ওজনও বাড়ে সমানতালে।



আপনার শরীরে ওজন স্বাভাবিক আছে কি-না তা বুঝবেন কী করে? আসুন ঝটপট একটা অংক করে আপনাকে উত্তরটা বলে দিই। আপনার শরীরের ওজন স্বাভাবিক, না বেশি তা নির্ণয় করা হয় বিএমআই বা বডি মাস ইনডেক্স দিয়ে। বিএমআই নির্ণয়ের নিয়মটা মনে রাখবেন। শরীরের ওজনকে উচ্চতার বর্গফল দিয়ে ভাগ করলে যে ফল পাওয়া যাবে তাকে বিএমআই বলা হয়। স্বাভাবিক বিএমআই স্কেল হল ১৮.৫ থেকে ২৪.৯। ধরুন আপনার শরীরের ওজন ৬৮ কেজি এবং উচ্চতা ১.৭৩ মি.। আপনার বিএমআই হল ৬৮ ভাগ বা ২:৯৯ এবং ফলাফল ২২.৭৪। ফলাফল অনুসারে আপনার ওজন একদম পারফেক্ট। বিএমআই ২৪.৯-এর বেশি হলে আপনার শরীরের ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি এবং ১৮.৫-এর কম হলে ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে কম ধরা হবে। মনে রাখবেন, শরীরের ওজন কমিয়ে বা বাড়িয়ে বিএমআই স্বাভাবিক পর্যায়ে আনার সুযোগ রয়েছে আপনার।



বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে খাদ্যের সুষম বণ্টন কোনো সময়েই বাস্তবে রূপ লাভ করবে বলে আশা করার কারণ নেই। তাই এই অসম সমাজ ব্যবস্থায় কেউ না খেয়ে মরবে, আর কেউ অতিমাত্রায় খেয়ে মারা যাবে। দুটিই জাতীয় সংকট। এই সংকট উত্তরণে অশুভ ব্যবসায়িক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে এসেছে বিশ্বের ওষুধ কোম্পানিগুলো। কিছুদিন আগে এফডিএ (ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) একটি কোম্পানির স্থূলতা কমানোর ওষুধ বেলবিক বাজারজাত করার অনুমতি প্রদান করেছে।



ওজন কমানোর ওষুধগুলো সাধারণত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত হয় না। এ ধরনের বেশকিছু ওষুধের ইতিহাস ভালো নয়। যুক্তরাষ্ট্রের হেলথ রিসার্চ গ্র“পের পরিচালক ড. সিডনি ওলফ ওজন কমানোর কার্যকর ওষুধ আবিষ্কৃত হবে বলে আশাবাদী নন। তিনি বলেন, এমন কোনো ওষুধ পাওয়ার সম্ভাবনা শূন্য, যা শুধু নিরাপদে ওজন কমাবে অথচ কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকবে না।



স্থূলকায় লোকদের উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিস ছাড়াও স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি বেশি থাকে। ওজন কমানোর ওষুধ প্রদানের মাধ্যমে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে স্ট্রোক ও হৃদরোগের ঝুঁকি আরও অনেকগুণ বেড়ে যায়। এটা অনেকটা মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা-এর মতো। শুধু বেশি খাবার খাওয়ার জন্যই সব সময় ওজন বাড়ে না, ওজন বাড়ার সঙ্গে খাবার ছাড়াও আবেগ, জৈবিক, সামাজিক, মনস্তাত্ত্বিক, পরিবেশসহ আরও বহু কারণ জড়িয়ে আছে। সুতরাং এতগুলো বহুমুখী সমস্যা সমাধানের জন্য একটিমাত্র বড়ি আবিষ্কার রীতিমতো অসম্ভব ব্যাপার। বিশ্বায়নে যুগে আজকাল সব দেশেই ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবারের সঙ্গে লবণ, চিনি ও চর্বি জুড়ে তার স্বাদ বাড়ানো হচ্ছে। অন্যদিকে বিজ্ঞাপন ও সামাজিক স্ট্যাটাস প্রতিনিয়ত আমাদের অতিভোজনে প্ররোচিত করছে। লোভনীয় খাবারের ছবি ও বর্ণনা আমাদের লোভকে অতিমাত্রায় উসকে দিচ্ছে। তাই আমরা খাচ্ছি আর মোটা হচ্ছি।



এ অবস্থায় করণীয় কী? করণীয় একটা আছে। তা শক্ত হলেও অসম্ভব নয়। আমাদের লোভ সংবরণ করতে হবে। আমি বলি- যার জিহ্বা সংযত তার স্বাস্থ্য সুসংহত। আগে যেমন বলছি- শরীরের প্রয়োজনে অতিরিক্ত ক্যালরি গ্রহণ করলে তা জ্বালিয়ে দিতে হবে, জমতে দেয়া যাবে না। সুষম খাবার উৎকৃষ্ট খাবার। ক্যালরি জ্বালাতে হলে আমাদের একটু কষ্ট করতে হবে। আর তা হল ব্যায়াম ও শারীরিক পরিশ্রম। লাইফস্টাইল পরিবর্তন, সুষম খাবার, শারীরিক পরিশ্রম, ব্যায়াম মানুষকে শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট রাখে, সুস্থ রাখে। শরীর ফিট ও সুস্থ থাকলে মানুষকে দেখতেও সুন্দর ও স্মার্ট লাগে। আর এ দুনিয়ায় সুন্দর ও স্মার্ট থাকতে কে না চায়!

কাঁকরোল খাওয়ার উপকারিতা

কাঁকরোল। ছোট কাঁঠালের মতো দেখতে কাঁটা কাঁটা সবুজ রঙ্গের একটি সবজি। কাকরোল তরকারি, ভাজি বা সিদ্ধ করে ভর্তা হিসেবে খাওয়া যায়। এতে প্রচুর ভিটামিন, মিনারেল, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, লুটেইন, জেনান্থিন প্রভৃতি থাকে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী।  বিশেষজ্ঞরা বলেন, কাঁকরোলে টমেটোর চেয়ে ৭০ গুণ বেশি লাইকোপিন থাকে, গাজরের চেয়ে ২০ গুণ বেশি বিটা ক্যারোটিন থাকে, কমলার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে এবং ভুট্টার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি জিয়াজেন্থিন থাকে। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় কাঁকরোল রাখা ভালো। এবার জেনে নিন কাঁকরোলের আরও নানা উপকারিতা-  ক্যান্সার প্রতিরোধ করে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, কাঁকরোলের পুষ্টি উপাদান ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার কোষের সংখ্যা বৃদ্ধিকে ধীর গতির করতে পারে। এতে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে পারে। এজন্যই কাঁকরোলকে ‘স্বর্গীয় ফল’ আখ্যা দেওয়া হয়।  বিষণ্ণতা প্রতিহত করে   কাঁকরোলে সেলেনিয়াম, মিনারেল এবং ভিটামিন থাকে, যা নার্ভাস সিস্টেমের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখে। তাই বিষণ্ণতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে কাঁকরোল। কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়  যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি বা যাদের উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের রয়েছে তাদের নিশ্চিন্তে কাঁকরোল খেতে পারেন। এটি উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।   মেদ কমায় কমলার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে কাঁকরোলে। ভিটামিন সি শরীরের অতিরিক্ত মেদ পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে।আর রক্তে ভিটামিন সি’র পরিমাণ কম থাকলে ফ্যাট বার্নিং কম হয়।ফলে ওজন কমে না।যাদের রক্তে প্রয়োজনীয় পরিমাণে ভিটামিন সি আছে,তাদের ফ্যাট বার্নিং হয় শতকরা ২৫ ভাগ।ফলে তাদের মোটা হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।  অ্যানেমিয়া প্রতিরোধ করে কাঁকরোলে প্রচুর আয়রন থাকার পাশাপাশি ভিটামিন সি ও ফলিক এসিড ও থাকে। এ কারণে নিয়মিত এটি খেলে অ্যানেমিয়ার প্রতিহত করা সম্ভব হয়।   কার্ডিওভাস্কুলার ডিজিজ প্রতিরোধ করে যেহেতু কাঁকরোলে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে তাই এটি কার্ডিওভাস্কুলার রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। সক্রিয় জীবনযাপনের পাশাপাশি কাঁকরোল খাওয়া হৃদস্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী।   দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায় কাঁকরোলে চোখের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী ভিটামিন, বিটাক্যারোটিন ও অন্যান্য উপাদান থাকে, যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করার পাশাপাশি চোখের ছানি প্রতিরোধেও সাহায্য করে।   তারুণ্য ধরে রাখে কোষের কার্যক্রমকে উদ্দীপিত করার মাধ্যমে এবং স্ট্রেস কমানোর মাধ্যমে বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে ধীর গতির করতে সাহায্য করে কাঁকরোল। কোলাজেনের গঠনকে পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে বয়সের ছাপ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে এটি।   হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনাকে কমিয়ে দেয় গবেষণায় পাওয়া গেছে যাদের শরীরে লাইকোপিনেরে মাত্রা বেশি, তাদের চেয়ে যাদের শরীরে এর মাত্রা কম তাদের শতকরা ৫০ ভাগ বেশি হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা রয়েছে। তাহলে কাঁকরোল আপনার হার্টেরও উপকার করবে নিশ্চয়ই।   ত্বকের যত্নে কাঁকরোলে আছে ভুট্টার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি জিযানথেন এবং গাজরের চেয়ে শতকরা ২০ ভাগ বেশি বিটা ক্যারোটিন, আছে ভিটামিন ই। এগুলো আপনার ত্বককে দূষণ থেকে রক্ষা করে। আপনার ত্বকে বয়সের ছাপ ফেলতে দেয় না। কোন কোন দেশে কাঁকরোলের জুস পাওয়া যায়। কাঁকরোলের জুস ত্বকের জন্য উপকারি।


কাঁকরোল। ছোট কাঁঠালের মতো দেখতে কাঁটা কাঁটা সবুজ রঙ্গের একটি সবজি। কাকরোল তরকারি, ভাজি বা সিদ্ধ করে ভর্তা হিসেবে খাওয়া যায়। এতে প্রচুর ভিটামিন, মিনারেল, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, লুটেইন, জেনান্থিন প্রভৃতি থাকে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী।


বিশেষজ্ঞরা বলেন, কাঁকরোলে টমেটোর চেয়ে ৭০ গুণ বেশি লাইকোপিন থাকে, গাজরের চেয়ে ২০ গুণ বেশি বিটা ক্যারোটিন থাকে, কমলার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে এবং ভুট্টার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি জিয়াজেন্থিন থাকে। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় কাঁকরোল রাখা ভালো। এবার জেনে নিন কাঁকরোলের আরও নানা উপকারিতা-

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, কাঁকরোলের পুষ্টি উপাদান ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার কোষের সংখ্যা বৃদ্ধিকে ধীর গতির করতে পারে। এতে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে পারে। এজন্যই কাঁকরোলকে ‘স্বর্গীয় ফল’ আখ্যা দেওয়া হয়।

বিষণ্ণতা প্রতিহত করে


কাঁকরোলে সেলেনিয়াম, মিনারেল এবং ভিটামিন থাকে, যা নার্ভাস সিস্টেমের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখে। তাই বিষণ্ণতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে কাঁকরোল। কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়

যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি বা যাদের উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের রয়েছে তাদের নিশ্চিন্তে কাঁকরোল খেতে পারেন। এটি উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।

 মেদ কমায়
কমলার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে কাঁকরোলে। ভিটামিন সি শরীরের অতিরিক্ত মেদ পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে।আর রক্তে ভিটামিন সি’র পরিমাণ কম থাকলে ফ্যাট বার্নিং কম হয়।ফলে ওজন কমে না।যাদের রক্তে প্রয়োজনীয় পরিমাণে ভিটামিন সি আছে,তাদের ফ্যাট বার্নিং হয় শতকরা ২৫ ভাগ।ফলে তাদের মোটা হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

অ্যানেমিয়া প্রতিরোধ করে
কাঁকরোলে প্রচুর আয়রন থাকার পাশাপাশি ভিটামিন সি ও ফলিক এসিড ও থাকে। এ কারণে নিয়মিত এটি খেলে অ্যানেমিয়ার প্রতিহত করা সম্ভব হয়।

 কার্ডিওভাস্কুলার ডিজিজ প্রতিরোধ করে
যেহেতু কাঁকরোলে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে তাই এটি কার্ডিওভাস্কুলার রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। সক্রিয় জীবনযাপনের পাশাপাশি কাঁকরোল খাওয়া হৃদস্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী।

 দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়
কাঁকরোলে চোখের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী ভিটামিন, বিটাক্যারোটিন ও অন্যান্য উপাদান থাকে, যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করার পাশাপাশি চোখের ছানি প্রতিরোধেও সাহায্য করে।


তারুণ্য ধরে রাখে
কোষের কার্যক্রমকে উদ্দীপিত করার মাধ্যমে এবং স্ট্রেস কমানোর মাধ্যমে বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে ধীর গতির করতে সাহায্য করে কাঁকরোল। কোলাজেনের গঠনকে পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে বয়সের ছাপ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে এটি।

 হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনাকে কমিয়ে দেয়
গবেষণায় পাওয়া গেছে যাদের শরীরে লাইকোপিনেরে মাত্রা বেশি, তাদের চেয়ে যাদের শরীরে এর মাত্রা কম তাদের শতকরা ৫০ ভাগ বেশি হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা রয়েছে। তাহলে কাঁকরোল আপনার হার্টেরও উপকার করবে নিশ্চয়ই।

 ত্বকের যত্নে
কাঁকরোলে আছে ভুট্টার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি জিযানথেন এবং গাজরের চেয়ে শতকরা ২০ ভাগ বেশি বিটা ক্যারোটিন, আছে ভিটামিন ই। এগুলো আপনার ত্বককে দূষণ থেকে রক্ষা করে। আপনার ত্বকে বয়সের ছাপ ফেলতে দেয় না। কোন কোন দেশে কাঁকরোলের জুস পাওয়া যায়। কাঁকরোলের জুস ত্বকের জন্য উপকারি।