Now you have implemented jQuery library into your blog. Now lets see how to add scrolling recent posts widget to blogger. If you've already inserted jQuery code then don't put it again. Now Add A new HTML/JavaScript widget Then paste the code given below:

Thursday, August 8, 2019

জেনে নিন কাঁচা ছোলার স্বাস্থ্যগুণের কিছু কথা!

পার্ক অথবা অন্য কোনো জায়গায় বেড়াতে গেলে চানাচুরওয়ালার কাছ থেকে আমরা কাঁচা ছোলা কিনে খাই। এটি যেমন সুস্বাদু, তেমনই পেটও ভরে যায়। কিন্তু কাঁচা ছোলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা অনেকেই খুব ভালোভাবে অবগত নই। উচ্চমাত্রার প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার ছোলা। কাঁচা, সেদ্ধ বা তরকারি রান্না করেও খাওয়া যায়। কাঁচা ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-এ, ভিটামিন- বি১, এবং বি২, খনিজ লবণ, ম্যাগনেশিয়াম ও ফসফরাস। আরও আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি, যা দীর্ঘক্ষণ ধরে শরীরে শক্তির জোগান দিতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে ছোলার ফ্যাট বেশিরভাগই আনস্যাচুরেটেড। এ ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেও ক্ষতিকারক নয়। বরং রক্তের চর্বি কমিয়ে ফেলতে ভূমিকা রাখে। ছোলা খাওয়ার অল্প সময়ের মধ্যেই হজম হয়। ছোলার আঁশ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। ছোলায় বেশ ভালো পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড থাকায় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। খাদ্যনালিতে ক্ষতিকর জীবাণু দূর করে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমাতে সাহায্য করে ছোলা। এটির শর্করা গ্লুকোজ হয়ে দ্রুত রক্তে যায় না। তাই ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য ছোলা খুবই উপকারী খাবার। কাঁচা ছোলা ভিজিয়ে, খোসা ছাড়িয়ে, কাঁচা আদার সঙ্গে খেলে শরীরে একই সঙ্গে আমিষ ও অ্যান্টিবায়োটিক গঠন হয়। আমিষ মানুষকে শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান বানায়। আর অ্যান্টিবায়োটিক যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় আমিষ প্রায় ১৮ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট প্রায় ৬৫ গ্রাম, ফ্যাট মাত্র ৫ গ্রাম, ২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’ প্রায় ১৯২ মাইক্রোগ্রাম এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-১ ও বি-২ আছে।     জেনে নিন ছোলার কিছু স্বাস্থ্যগুণের কথা: ছোলা পুষ্টিকর একটি ডাল। এটি মলিবেডনাম এবং ম্যাঙ্গানিজের চমৎকার উৎস। ছোলাতে প্রচুর পরিমাণে ফলেট এবং খাদ্য আঁশ আছে সেই সাথে আছে আমিষ, ট্রিপট্যোফান, কপার, ফসফরাস এবং আয়রণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ১/২ কাপ ছোলা, শিম এবং মটর খায় তাদের পায়ের আর্টারিতে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়। তাছাড়া ছোলায় অবস্থিত আইসোফ্লাভন ইস্কেমিক স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আর্টারির কার্যক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। আবার তাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ছোলার শর্করা ভাল। কারণ ১০০ গ্রাম ছোলায় আছে ১৭ গ্রাম আমিষ বা প্রোটিন, ৬৪ গ্রাম শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট এবং ৫ গ্রাম ফ্যাট বা তেল। ছোলার শর্করা বা কার্বোহাইডেটের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় ক্যালসিয়াম আছে প্রায় ২০০ মিলিগ্রাম, লৌহ ১০ মিলিগ্রাম, ও ভিটামিন এ ১৯০ মাইক্রোগ্রাম। এছাড়া আছে ভিটামিন বি-১, বি-২, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম। এর সবই শরীরের উপকারে আসে। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখানো হয়, যে সকল অল্পবয়সী নারী বেশি পরিমাণে ফলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবার খান, তাদের হাইপারটেনশনের প্রবণতা কমে যায়। যেহেতু ছোলায় বেশ ভাল পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড থাকে সেহেতু ছোলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। এছাড়া ছোলা বয়সসন্ধি পরবর্তীকালে মেয়েদের হার্ট ভাল রাখতেও সাহায্য করে।    কোরিয়ান গবেষকরা তাদের গবেষণায় প্রমাণ করেছেন, বেশি পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড খাবারের সাথে গ্রহণের মাধ্যমে নারীরা কোলন ক্যান্সার এবং রেক্টাল ক্যান্সার এর ঝুঁকি থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারেন। এছাড়া ফলিক অ্যাসিড রক্তের অ্যালার্জির পরিমাণ কমিয়ে অ্যাজমার প্রকোপও কমিয়ে দেয়। আর তা্ই নিয়মিত ছোলা খান এবং সুস্থ থাকুন। এছাড়াও এতে ভিটামিন ‘বি’ও আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। ভিটামিন ‘বি’ কমায় মেরুদণ্ডের ব্যথা, স্নায়ুর দুর্বলতা। ছোলা শরীরের অপ্রয়োজনীয় কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়। ছোলার ফ্যাট বা তেলের বেশির ভাগ পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট ছাড়া ছোলায় আরও আছে বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ লবণ। অস্ট্রেলিয়ান গবেষকরা দেখিয়েছেন, খাবারে ছোলা যুক্ত করলে টোটাল কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায়। ছোলাতে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ধরনের খাদ্য আঁশ আছে যা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। আঁশ, পটাসিয়াম, ভিটামিন ‘সি’ এবং ভিটামিন বি-৬ হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়। এর ডাল আঁশসমৃদ্ধ যা রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ৪০৬৯ মিলিগ্রাম ছোলা খায় হৃদরোগ থেকে তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৯% কমে যায়।     যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে এর ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। শ্বাসনালীতে জমে থাকা পুরনো কাশি বা কফ ভালো হওয়ার জন্য কাজ করে শুকনা ছোলা ভাজা। ছোলা বা বুটের শাকও শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। প্রচুর পরিমাণে ডায়াটারি ফাইবার বা আঁশ রয়েছে এই ছোলায় ও ছোলার শাকে। ডায়াটারি ফাইবার খাবারে অবস্থিত পাতলা আঁশ, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। যাদের রক্তে চর্বি বেড়ে গেছে তারা নিয়মিত ছোলা খাওয়ার অভ্যাস করুন, দেখবেন উপকার পাবেন। ছোলার ফ্যাটের বেশিরভাগই পলি আনস্যাচুয়েটেড। এই ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়, বরং রক্তের চর্বি কমায়। ছোলায় শর্করার গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকায় শরীরে প্রবেশ করার পর অস্থির ভাব দূর হয়। সুতরাং হঠাৎ যদি দেহের মধ্যে অস্থির অনুভব হয়, তাহলে ছোলা খেয়ে নিতে পারেন। দেখবেন উপকার পাবেন। সালফার নামক খাদ্য উপাদান থাকে এই ছোলাতে। সালফার মাথা গরম হয়ে যাওয়া, হাত-পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া কমাতে অনেক সাহায্য করে থাকে। তাই জাদের হাতে পায়ে জ্বালা পোড়া অনুভব হয় তারা নিয়মিত ছোলা খান।     ছোলা কৃমিনাশক হিসেবেও কাজ করে। সারা রাত ছোলা ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে খেলে কৃমি মারা যায়। সুতরাং কৃমির জন্য আর চিন্তা করতে হবে না। কাচা ছোলা সকালে খেলে কৃমি মারা যাবে। কাঁচা ছোলায় রয়েছে জ্বর ভালো করার ক্ষমতা। সুতরাং কেউ যদি জ্বর এ ভোগেন তাহলে কাঁচা ছোলা খেতে পারেন। রূপচর্চায়ও ছোলা ব্যবহার করেন অনেকে। সাবানের মতো ছোলা শরীরের চামড়া পরিষ্কার করে। ছোলা বা মটর দানার বেসন পানিতে ভিজিয়ে গোসলের আগে শরীরে মাখলে শরীর থেকে ময়লা পরিস্কার হয়ে যায়। ছোলা ত্বকের লাবণ্য ফিরিরে আনে। ছোলার খোসা সেদ্ধ করে সেই সেদ্ধ পানি বার বার খেলে পিত্ত রোগ ভালো হয়। মুখে ব্রণ বা মেছতা হরে ছোলা ভিজিয়ে বেটে মুখে লাগান। এতে ব্রণ দূর হয় এবং মেছতার দাগ মুছে যায়। এছাড়া ছোলা বাঁটা মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের সৌন্দর্য ও টান টান ভাব ফিরে আসে। বদহজমের কারণে অনেকের গায়ের রঙ কালো হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে পরিষ্কার পানিতে ছোলা সেদ্ধ করে সেই পানি খেলে বদহজম থাকবে না এবং গায়ের কালচে ভাবটিও কেটে যাবে।

পার্ক অথবা অন্য কোনো জায়গায় বেড়াতে গেলে চানাচুরওয়ালার কাছ থেকে আমরা কাঁচা ছোলা কিনে খাই। এটি যেমন সুস্বাদু, তেমনই পেটও ভরে যায়। কিন্তু কাঁচা ছোলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা অনেকেই খুব ভালোভাবে অবগত নই। উচ্চমাত্রার প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার ছোলা। কাঁচা, সেদ্ধ বা তরকারি রান্না করেও খাওয়া যায়। কাঁচা ছোলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-এ, ভিটামিন- বি১, এবং বি২, খনিজ লবণ, ম্যাগনেশিয়াম ও ফসফরাস। আরও আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি, যা দীর্ঘক্ষণ ধরে শরীরে শক্তির জোগান দিতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে ছোলার ফ্যাট বেশিরভাগই আনস্যাচুরেটেড। এ ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেও ক্ষতিকারক নয়। বরং রক্তের চর্বি কমিয়ে ফেলতে ভূমিকা রাখে। ছোলা খাওয়ার অল্প সময়ের মধ্যেই হজম হয়। ছোলার আঁশ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। ছোলায় বেশ ভালো পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড থাকায় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। খাদ্যনালিতে ক্ষতিকর জীবাণু দূর করে ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমাতে সাহায্য করে ছোলা। এটির শর্করা গ্লুকোজ হয়ে দ্রুত রক্তে যায় না। তাই ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য ছোলা খুবই উপকারী খাবার। কাঁচা ছোলা ভিজিয়ে, খোসা ছাড়িয়ে, কাঁচা আদার সঙ্গে খেলে শরীরে একই সঙ্গে আমিষ ও অ্যান্টিবায়োটিক গঠন হয়। আমিষ মানুষকে শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান বানায়। আর অ্যান্টিবায়োটিক যেকোনো অসুখের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় আমিষ প্রায় ১৮ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট প্রায় ৬৫ গ্রাম, ফ্যাট মাত্র ৫ গ্রাম, ২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’ প্রায় ১৯২ মাইক্রোগ্রাম এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি-১ ও বি-২ আছে।



জেনে নিন ছোলার কিছু স্বাস্থ্যগুণের কথা:
ছোলা পুষ্টিকর একটি ডাল। এটি মলিবেডনাম এবং ম্যাঙ্গানিজের চমৎকার উৎস। ছোলাতে প্রচুর পরিমাণে ফলেট এবং খাদ্য আঁশ আছে সেই সাথে আছে আমিষ, ট্রিপট্যোফান, কপার, ফসফরাস এবং আয়রণ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ১/২ কাপ ছোলা, শিম এবং মটর খায় তাদের পায়ের আর্টারিতে রক্ত চলাচল বেড়ে যায়। তাছাড়া ছোলায় অবস্থিত আইসোফ্লাভন ইস্কেমিক স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আর্টারির কার্যক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। আবার তাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ছোলার শর্করা ভাল। কারণ ১০০ গ্রাম ছোলায় আছে ১৭ গ্রাম আমিষ বা প্রোটিন, ৬৪ গ্রাম শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট এবং ৫ গ্রাম ফ্যাট বা তেল। ছোলার শর্করা বা কার্বোহাইডেটের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোলায় ক্যালসিয়াম আছে প্রায় ২০০ মিলিগ্রাম, লৌহ ১০ মিলিগ্রাম, ও ভিটামিন এ ১৯০ মাইক্রোগ্রাম। এছাড়া আছে ভিটামিন বি-১, বি-২, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম। এর সবই শরীরের উপকারে আসে। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখানো হয়, যে সকল অল্পবয়সী নারী বেশি পরিমাণে ফলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবার খান, তাদের হাইপারটেনশনের প্রবণতা কমে যায়। যেহেতু ছোলায় বেশ ভাল পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড থাকে সেহেতু ছোলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। এছাড়া ছোলা বয়সসন্ধি পরবর্তীকালে মেয়েদের হার্ট ভাল রাখতেও সাহায্য করে।



কোরিয়ান গবেষকরা তাদের গবেষণায় প্রমাণ করেছেন, বেশি পরিমাণ ফলিক অ্যাসিড খাবারের সাথে গ্রহণের মাধ্যমে নারীরা কোলন ক্যান্সার এবং রেক্টাল ক্যান্সার এর ঝুঁকি থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারেন। এছাড়া ফলিক অ্যাসিড রক্তের অ্যালার্জির পরিমাণ কমিয়ে অ্যাজমার প্রকোপও কমিয়ে দেয়। আর তা্ই নিয়মিত ছোলা খান এবং সুস্থ থাকুন। এছাড়াও এতে ভিটামিন ‘বি’ও আছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। ভিটামিন ‘বি’ কমায় মেরুদণ্ডের ব্যথা, স্নায়ুর দুর্বলতা। ছোলা শরীরের অপ্রয়োজনীয় কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয়। ছোলার ফ্যাট বা তেলের বেশির ভাগ পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট ছাড়া ছোলায় আরও আছে বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ লবণ। অস্ট্রেলিয়ান গবেষকরা দেখিয়েছেন, খাবারে ছোলা যুক্ত করলে টোটাল কোলেস্টেরল এবং খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে যায়। ছোলাতে দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় উভয় ধরনের খাদ্য আঁশ আছে যা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। আঁশ, পটাসিয়াম, ভিটামিন ‘সি’ এবং ভিটামিন বি-৬ হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়। এর ডাল আঁশসমৃদ্ধ যা রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ৪০৬৯ মিলিগ্রাম ছোলা খায় হৃদরোগ থেকে তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৯% কমে যায়।



যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে এর ভূমিকা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। শ্বাসনালীতে জমে থাকা পুরনো কাশি বা কফ ভালো হওয়ার জন্য কাজ করে শুকনা ছোলা ভাজা। ছোলা বা বুটের শাকও শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। প্রচুর পরিমাণে ডায়াটারি ফাইবার বা আঁশ রয়েছে এই ছোলায় ও ছোলার শাকে। ডায়াটারি ফাইবার খাবারে অবস্থিত পাতলা আঁশ, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। যাদের রক্তে চর্বি বেড়ে গেছে তারা নিয়মিত ছোলা খাওয়ার অভ্যাস করুন, দেখবেন উপকার পাবেন। ছোলার ফ্যাটের বেশিরভাগই পলি আনস্যাচুয়েটেড। এই ফ্যাট শরীরের জন্য মোটেই ক্ষতিকর নয়, বরং রক্তের চর্বি কমায়। ছোলায় শর্করার গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পরিমাণ কম থাকায় শরীরে প্রবেশ করার পর অস্থির ভাব দূর হয়। সুতরাং হঠাৎ যদি দেহের মধ্যে অস্থির অনুভব হয়, তাহলে ছোলা খেয়ে নিতে পারেন। দেখবেন উপকার পাবেন। সালফার নামক খাদ্য উপাদান থাকে এই ছোলাতে। সালফার মাথা গরম হয়ে যাওয়া, হাত-পায়ের তলায় জ্বালাপোড়া কমাতে অনেক সাহায্য করে থাকে। তাই জাদের হাতে পায়ে জ্বালা পোড়া অনুভব হয় তারা নিয়মিত ছোলা খান।



ছোলা কৃমিনাশক হিসেবেও কাজ করে। সারা রাত ছোলা ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে খেলে কৃমি মারা যায়। সুতরাং কৃমির জন্য আর চিন্তা করতে হবে না। কাচা ছোলা সকালে খেলে কৃমি মারা যাবে। কাঁচা ছোলায় রয়েছে জ্বর ভালো করার ক্ষমতা। সুতরাং কেউ যদি জ্বর এ ভোগেন তাহলে কাঁচা ছোলা খেতে পারেন। রূপচর্চায়ও ছোলা ব্যবহার করেন অনেকে। সাবানের মতো ছোলা শরীরের চামড়া পরিষ্কার করে। ছোলা বা মটর দানার বেসন পানিতে ভিজিয়ে গোসলের আগে শরীরে মাখলে শরীর থেকে ময়লা পরিস্কার হয়ে যায়। ছোলা ত্বকের লাবণ্য ফিরিরে আনে। ছোলার খোসা সেদ্ধ করে সেই সেদ্ধ পানি বার বার খেলে পিত্ত রোগ ভালো হয়। মুখে ব্রণ বা মেছতা হরে ছোলা ভিজিয়ে বেটে মুখে লাগান। এতে ব্রণ দূর হয় এবং মেছতার দাগ মুছে যায়। এছাড়া ছোলা বাঁটা মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের সৌন্দর্য ও টান টান ভাব ফিরে আসে। বদহজমের কারণে অনেকের গায়ের রঙ কালো হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে পরিষ্কার পানিতে ছোলা সেদ্ধ করে সেই পানি খেলে বদহজম থাকবে না এবং গায়ের কালচে ভাবটিও কেটে যাবে।

0 comments:

Post a Comment